এ যেন সালিশি সভার আইনি সংস্করণ। ধর্ষণ করার পর ধর্ষিতাকে বিয়ে করলেই  দোষ মকুব ধর্ষকের। এবার এমনই আইন আনতে চলেছে  তুরস্ক।

জানা গিয়েছে, কোনও নাবালিকাকে ধর্ষণের পর যদি তাকে বিয়ে করতে রাজি থাকে ধর্ষক, তাহলে তার শাস্তি মকুব হয়ে যাবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এই  বিল  আইনে পরিণত হবে জানুয়ারির মধ্য়েই।

তুরস্কের পিওপিলস ডেমোক্র্য়াট পার্টি কার্যত এইভাবে ধর্ষকদের ছাড়ই দিচ্ছে না, সেইসঙ্গে নাবালিকাদের বিয়েকেও আইনসিদ্ধ করতে চলেছে বলে অভিযোগ। আর সবচেয়ে বড় কথা, অনেকেরই আশঙ্কা, এর আইন কমবয়সি মেয়েদের যৌন নিগ্রহের ঘটনা আরও বাড়িয়ে তুলবে।

ইকুয়ালিটি নাওয়ের এক কর্মী সাউয়াড আবু দাহে বলেন, "তুরস্কের নারী অধিকার রক্ষা কর্মীদের আমি কুর্নিশ করি। যাঁরা এই পরিস্থিতির মধ্য়েও এই বিল পাস হওয়াকে আটকানোর চেষ্টা করছেন।"

যদিও মেয়েদের প্রতি বৈষম্য়কারী এই ধরনের আইন, অর্থাৎ তোমার ধর্ষককেই তুমি বিয়ে করো, মধ্য়প্রাচ্য় ও উত্তর আফ্রিকার বিভিন্ন জায়গায় চালু রয়েছে দাবি করেছেন কেউ কেউ। অন্য়দিকে,  গত এক তুরস্কে  ৫ লাখের কাছে  নাবালিকা বিয়ের ঘটনা ঘটেছে বলে অনেকের দাবি। আর একটি সূত্র থেকে দাবি করা হচ্ছে, ওই দেশে নারী নির্যাতনের ঘটনায় কোনও বিরাম নেই। এদিকে এমন আইনের কথা শুনে এদেশের নারী অধিকার আন্দোলনের কর্মীরা বলছেন, এ তো পুরোপুরি সালিশি সভা। ধর্ষণের পর বিয়ে করে নিলে আর জেলে যেতে হবে না। এর ফলে শুধু যে ধর্ষণ বেড়ে চলবে তাই নয়, সেইসঙ্গে ধর্ষিতাকেও অসম্মান করবে এই আইন।