নিহত জঙ্গি সংগঠন আল কায়দা-প্রধান ওসামা বিন লাদেন পুত্র হামজা বিন লাদেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা দফর সূত্রে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। পাশাপাশি সেদেশের সংবাদ মাধ্যম সূত্রে এই খবরই প্রচার করা হয়েছে।  

এদিন তার মৃত্যুর খবর প্রথম প্রকাশ করে মার্কিন সংবাদমাধ্যম এনবিসি নিউজ। তবে কীভাবে কোথায় তার মৃত্যু হয়েছে এবং  এই মৃত্যুর সঙ্গে মার্কিন মুলুকের কোনও ভুমিকা রয়েছে কিনা তাও এখনও পর্যন্ত স্পষ্ট করে জানা যায়নি। এদিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, হামজার মৃত্যুর ব্যপারে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চান না। 

প্রসঙ্গত জঙ্গি গোষ্ঠী আলকায়দার তরফে প্রকাশিত হামজার সর্বশেষ ভাষণে দেখা গিয়েছিল, আরব উপদ্বীপের বাসিন্দাদের বিদ্রোহের আহ্বান জানিয়েছে সে। ওই বছরই সৌদি আরব তার নাগরিকত্ব খারিজ করে দিলে সৌদি আরবকেও হুমকীর বার্তা দিয়েছিল নবীন আলকায়দা নেতা হামজা। পাশাপাশি আল কায়দার একাধিক ভিডিও ফুটেজে ওসামা বিন লাদেনের পাশে হামজার উপস্থিতি চোখে পড়েছে।  কুখ্যাত ১১ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টুইন টাওয়ার হামলার সময়ে বাবা ওয়ামা বিন লাদেনের পাশে ছিল। সেই হামলার দায়ও শিকার কের নিয়েছিল আল কায়দা।

৩০বছর বয়সী হামজাকে দু'বছর আগে সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে কালো তালিকাভুক্ত করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। । চলতি বছরের মার্চ মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে হামজার হদিশ দিতে পারলে ১০ লক্ষ মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। আর এরই চার মাসের মধ্যেই তার মৃত্যুর খবর প্রকাশ করল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।