বেশ কয়েক মাস হয়ে গেছে, এখনও পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ার স্বৈরাচারি শাসক কিম জং উনকে জনগণের সামনে দেখা যায়নি। আর তা নিয়ে আবারও জল্পনা শুরু হয়ে গেছে। একটি সূত্র বলছে কিম জং উন কোমায় আচ্ছন্ন রয়েছেন। আর একটি সূত্র বলছে কিমের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তাঁর বোন ইয়ো জং ক্ষমতা বুঝে না নেওয়া পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া কিমের মৃত্যুর খবর সামনে আনবে না। বিশেষজ্ঞ এক চিকিৎসক জানিয়েছেন কিম জং উনের মৃত্যু হয়েছে। তবে তার আগে থেকেই দক্ষিণ কোরিয়ার একটি সংবাদ মাধ্যম দাবি করে এসেছে গভীর কোমায় আচ্ছন্ন রয়েছেন কিম। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেনি পিয়ংইয়ং। একই সঙ্গে নীবরতা বজায় রেখেছে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম। 


কিন্তু কিমের মৃত্যু নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়েছেন নেটিজেনরা। রীতিমত মস্করা শুরু হয়েছে নেটদুনিয়ায়। অনেকেই কিমের উদ্দেশ্যে বলেছেন মৃত কিম যে কোনও মুহূর্তে জীবিত হয়ে ফিরে আসার ক্ষমতা রাখে। 


মাস কয়েক আগেই কিমের হৃদযন্ত্রের অপারেশন হয়েছিল। সেই সময়ই দীর্ঘ দিন লোকচক্ষুর আড়ালে ছিলেন তিনি। একাধিক সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছিল কিমের মৃত্যু হয়েছে।  গোটা বিশ্ব যখন কিমের মৃত্যু নিয়ে জল্পনা মত্ত তখনই আচমকাই ফিরে এসে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন উত্তর কোরিয়ার স্বৈরাচারী শাসক কিম। পিয়ংইয়ং সূত্রের খবর গত সপ্তাহেই দলীয় ওয়ার্কস  পার্টির বৈঠকে উপস্থিত হয়েছিলেন কিম। পাশাপাশি তাঁর বোনের হাতেও ক্ষমতা হস্তান্তর করেছিলে। রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম অনুযায়ী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আর দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক রাখার দায়িত্বা দেওয়া হয়েছে তার বোনকে।