Asianet News BanglaAsianet News Bangla

ব্রিটেনের তখতে এবার লিজ ট্রাস, কেমন ছিল লিজ-সূনক ভোট যুদ্ধ?

ভারতীয় বংশোদভূত ঋষি সুনাককে পরাজিত করে সোমবার কনজার্ভেটিভ পার্টির ভোটাভুটিতে বিজয়ী প্রার্থী মনোনিত হন লিজ। ৪৭ বছর বয়েসেই ব্রিটেনের তখতে জায়গা করে নিলেন তিনি। 

Who is Liz truss, how he defeated rishi sunak
Author
First Published Sep 5, 2022, 10:39 PM IST

কনজার্ভেটিভ পার্টির ভোটাভুটিতে জয়ী হয় বরিস জনসনের উত্তরসূরী হিসেবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দায়ীত্ব গ্রহণ করতে চলেছেন লিজ ট্রাস। ভারতীয় বংশোদভূত ঋষি সুনাককে পরাজিত করে সোমবার কনজার্ভেটিভ পার্টির ভোটাভুটিতে বিজয়ী প্রার্থী মনোনিত হন লিজ। ৪৭ বছর বয়েসেই ব্রিটেনের তখতে জায়গা করে নিলেন তিনি। 
ব্রিটেনের সিংহাসনে মার্গারেট থ্যাচার ও থেরেসা মের পর তৃতীয় মহিলা প্রধানমন্ত্রী হলেন লিজ। 
ডাউনিং স্ট্রিটের কাছে কুইন এলিজাবেথ II সেন্টারে চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়। অফিসার এবং ব্যাকবেঞ্চ এমপিদের কমিটির সভাপতি স্যার গ্রাহাম ব্র্যাডি আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করলেন। 
তিনি বলেন, সুনাকের ৬০,৩৯৯ ভোটের তুলনায় ট্রাস ৮১,৩২৬ ভোট জিতেছেন।

তবে, পোলস্টার, রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং মিডিয়া আউটলেটগুলির জন্য এটি সামান্য বিস্ময়কর ছিল কারণ ট্রাস ৪২ বছর বয়সী সুনাককে প্রাক-নির্বাচন সমীক্ষায় পরাজিত করবে বলে আশা করা হয়েছিল। 
বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী জনসনের প্রতি টোরি সদস্যপদ বেসের দীর্ঘস্থায়ী আনুগত্যের সংমিশ্রণ থেকেই তারা প্রাক্তন ঘনিষ্ঠ মিত্র সুনাকের ব্যবহারকে বিশ্বাসঘাতকতা হিসাবে দেখেন এবং ব্রিটিশ ভারতীয় এমপির দৌড়ে ব্যর্থ হওয়ার পিছনে ট্রাসের কর কমানোর প্রতিশ্রুতি অন্যতম কারণ।
ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার আগেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছে গিয়েছিলেন বরিস জনসন। তিনি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে থেরেসা মের স্থলাভিষিক্ত হন। বরিস জনসন ১১৩৯ দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণ করেন। জনসন মঙ্গলবার নতুন কনজারভেটিভ পার্টির নেতার সাথে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাথে দেখা করতে বালমোরালে ভ্রমণ করবেন। 

আরও পড়ুনব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন লিজ ট্রাস, কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হারালেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত

লিজ ট্রাস বিদেশ সচিব ছিলেন। একটি সরকারী স্কুলে পড়াশোনা করা ৪৭ বছর বয়সী ট্রাসের বাবা ছিলেন অঙ্কের অধ্যাপক এবং মা একজন নার্স। একটি শ্রমপন্থী পরিবার থেকে আসা, ট্রাস অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন, রাজনীতি এবং অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। লেখাপড়া শেষ করে কিছুদিন অ্যাকাউন্ট্যান্ট হিসেবেও কাজ করেন। এরপর তিনি রাজনীতিতে আসেন। ট্রাস প্রথমবারের মতো এমপি নির্বাচিত হন ২০১০ সালে। ট্রাস প্রাথমিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার ইস্যুটির বিরুদ্ধে ছিলেন। পরে ব্রেক্সিটের নায়ক হিসাবে আবির্ভূত হওয়া বরিস জনসনকে সমর্থন করেন তিনি। ব্রিটিশ মিডিয়া প্রায়ই তাকে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচারের সঙ্গে তুলনা করে।

আরও পড়ুননবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা বার্তা মোদীর, ভারত-ব্রিটেন সম্পর্ক নিয়েও আশাবাদী প্রধানমন্ত্রী

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios