আইপিএলের ইতিহাসে সবথেকে বিতর্কিত দল চেন্নাই সুপার কিংস। এই নিয়ে সন্দেহের কোনো জায়গা নেই। মাঝে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে তাদের ২ মরশুম নির্বাসিত হতে হয়েছিল। কিন্তু সে সকল কলঙ্ক সত্ত্বেও আইপিএলের ইতিহাসে সবথেকে সফল দল দুটির একটি সিএসকে। সিএসকে দলের অতি বড় সমালোচকও এই দাবি মানতে বাধ্য হবেন। নির্বাসনের আগে ২০১০ এবং ২০১১ তে এবং নির্বাসন কাটিয়ে ফেরার পর ২০১৮ তে আইপিএলের ট্রফিটি ঘরে তুলেছিল তারা। শেষ মরশুমের ফাইনালে উঠেও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কাছে ম্যাচ হেরে ট্রফি হাতছাড়া হয় তাদের। ওই বছর ট্রফি জিতে সেই আপসোস পূরণ করতে চায় সিএসকে। চেন্নাইয়ের এর চিপক স্টেডিয়ামের পিচ বরাবরই সাহায্য করে স্পিনারদের। তাই তাদের স্পিন বিভাগকে আরো শক্তিশালী করতে ইমরান তাহির এবং হরভজন সিংয়ের সাথে যোগ দেবেন শেষ আইপিএল নিলামে দলে আসা পীযুষ চাওলা। এছাড়া দেশীয় পেসার দীপক চাহার এবং শার্দূল ঠাকুরের সাথে দলে এসেছেন অজি পেসার জশ হ‍্যাজেলউড। 

এইবারের আইপিএলে তারা অভিযান শুরু করছে তাদের গতবারের ফাইনালের প্রতিপক্ষ মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সদের বিরুদ্ধে। তাদের সম্পূর্ণ ফিক্সচারটি নিচে দেওয়া থাকলো।

১. বনাম মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। ২৯শে মার্চ (অ্যাওয়ে)
২. বনাম রাজস্থান রয়েলস। ২রা এপ্রিল (হোম)
৩. বনাম কলকাতা নাইট রাইডার্স। ৬ই এপ্রিল (অ্যাওয়ে)
৪. বনাম কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। ১১ই এপ্রিল (হোম)
৫. বনাম  দিল্লি ক্যাপিটালস। ১৩ই এপ্রিল (অ্যাওয়ে) 
৬. বনাম কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। ১৭ই এপ্রিল (অ্যাওয়ে)
৭. বনাম সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ১৯শে এপ্রিল (হোম)
৮. বনাম মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। ২৪শে এপ্রিল (হোম)
৯. বনাম রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। ২৭শে এপ্রিল (হোম)
১০. বনাম সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ৩০শে এপ্রিল (অ্যাওয়ে)
১১. বনাম রাজস্থান রয়েলস। ৪ই মে (অ্যাওয়ে)
১২. বনাম কলকাতা নাইট রাইডার্স। ৭ই মে (হোম)
১৩. বনাম দিল্লি ক্যাপিটালস। ১০ই মে (হোম)
১৪. বনাম রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। ১৪ই মে (অ্যাওয়ে)