কথায় বলে বেগুনে নাকি কোনও গুণই নেই। যদিও বাস্তব তার উল্টো কথাই  বলছে। এককাপ অথবা  ৯৬ গ্রামের মতো রান্না করা বেগুনের টুকরো থেকে পাওয়া যায় ৩৩.৬ কিলো ক্য়ালোরি। পাওয়া যায় ৮.২৯ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, যার মধ্য়ে সুগার থাকে ৩.০৪ গ্রাম।  ফাইবার থাকে ২.৪ গ্রাম, ম্য়াগনেশিয়াম ১০.৬ মিলিগ্রাম। ১৪.৪ মিলিগ্রাম ফসফরাস। ১১৭ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম। ১৩.৪ মিলিগ্রাম ফোলেট, ৮.৯৩ মিলিগ্রাম কোলাইন। ২১.১ এমসিজি বিটা ক্য়ারোটিন। এছাড়াও থাকে কপার, থায়ামিন এবং ফেনোলিক কমপাউন্ড, যা অ্য়ান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। এছাড়াও থাকে অ্য়ান্থোসিয়ানিন নামক অ্য়ান্টি অক্সিডেন্ট, যার মধ্য়ে থাকে নাসুনিন , লুটিন আর জিয়াজ্য়ানথিন।

বেগুনে থাকা ফাইবার, পটাশিয়াম, ভিটামিন-বি-৬, অ্য়ান্টি অক্সিডেন্ট, হার্টের  স্বাস্থ্য় রক্ষায় খুব ভাল কাজ দেয়। ২০১৯ সালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে, অ্য়ান্থোসিয়ানিন হার্ট ডিজিজের ঝুঁকি কমায়।

আর এক পরীক্ষায় গবেষকরা দেখেছেন, মহিলাদের  পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্য়ান্থোসিয়ানিন গ্রহণ করলে তাদের ব্লাড সুগার তাৎপর্যপূর্ণভাবে কমে। বেগুনে থাকে ফাইবার। যার  ফলে কোলেস্টরল লেভেল নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য় করে। বেগুনে থাকা অ্য়ান্টি অক্সিডেন্ট ক্লোরোজেনিক অ্য়াসিড খারাপ কোলেস্টেরল বা এলডিএল কমায়। এবং নন অ্য়ালকহলিক ফ্য়াটি লিভারের ঝুঁকিও কমায়। বেগুনে থাকা পলিফেনলস, ক্য়ানসারের হাত থেকেও রক্ষা করে আমাদের। বেগুনে থাকা অ্য়ান্থোসিয়ানিন এবং ক্লোরোজেনিক অ্য়াসিড টিউমার বাড়বৃদ্ধি ও ক্য়ানসার কোষ ছড়িয়ে পড়তে বাধা দেয়।

মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতাকে চাঙ্গা করতে বেগুন বেশ ভাল কাজ করে। বেগুনে থাকা লুটিন চোখের স্বাস্থ্য় সুরক্ষায় কাজ করে ও বয়ঃবৃদ্ধিজনিত ম্য়াকুলার ডিজেনারেশন প্রতিরোধ করতে সাহায্য় করে। কম ক্য়ালোরির সবজি বেগুন ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে।