শাহজাহান আলি, ঘাটাল : চিনা ভিডিও কনফারেন্স অ্যাপ 'জুম' এর বিকল্প অ্যাপ 'দৃষ্টি'বানিয়ে তাক লাগালো ঘাটালের যুবক।এক সাথে ৫-১০ জন নয়, ১০০ জন একসাথে ভিডিও কলের সুবিধা পাবে ঘাটালের যুবকের তৈরি ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে। গুগলে উঠতেই কয়েকদিনে রেটিং ৪.৫ ৷ স্থানীয় বিধায়ক জানান, রাজ্য সরকারের কাছে এই অ্যাপ তুলে ধরে কাজে লাগানোর সুপারিশ করব ৷ 

ভারত চিন উত্তেজনায় চিনা সামগ্রী বয়কটের সওয়াল জোরালো হয়েছে ৷ তার জেরেই কেন্দ্রীয় সরকার চিনা ৫৯ টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করে ডিজিটাল স্ট্রাইক চালিয়েছে।করোনা লকডাউন চলাকালীন গৃহবন্দী অবস্থায় একমাত্র ভরসা হয়ে উঠেছিল চিনা ভিডিও কনফারেন্স অ্যাপ জুম৷  কিন্তু তথ্য ফাঁসের আশঙ্কায় জুম ব্যবহারে সতর্ক করে কেন্দ্রীয় সরকার।এবার জুমকে রীতিমতো টক্কর দিয়ে গুগল প্লে স্টোরে হাজির বাংলা তথা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল থানার রাধানগর এলাকার যুবক -অর্নব মোদক-এর আবিষ্কার ৷ 

অর্নব এবারই ঘাটালের জলসরা হাইস্কুল থেকে মাধ্যমিক দিয়েছে।তার বানানো ফ্রি অ্যাপটির নাম 'দৃষ্টি '।বৃহস্পতিবারই গুগল সেই অ্যাপের অনুমোদন দিয়ে প্লে স্টোরে ছেড়েছে।মোবাইল অ্যাপের রেটিং সংস্থা আইএআরসি তথা ইন্টারন্যাশনাল এজ রেটিং কোয়ালিশন শুরুতেই ওই অ্যাপসকে ৪.৫ রেটিং দিয়েছে।অর্নবের এই কৃতিত্বে খুশি পরিবার সহ ঘাটালবাসী।অর্নবের বাবা হারাধন মোদক এলাকারই একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক।বরাবরই সফটওয়্যার ও অ্যাপস তৈরি করা অর্নবের নেশা ৷ তা থেকেই এতো বড়ো সাফল্য বলে জানা গিয়েছে। 

যেকোনও কনফারেন্স ভিডিও অ্যাপের থেকে অর্নবের তৈরি দৃষ্টি কোনও অংশে কম নয়। ্অর্নব জানায়- দেশীয় অ্যাপ, সম্পূর্ণ সুরক্ষিত,কয়েক মাসের চেষ্টাতে তৈরি ৷ এটার দ্বারা বিনামূল্যে একসঙ্গে একশো জনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সিং করা যায় ৷এটার জন্য কোথাও কোনও প্রশিক্ষণ না নিয়ে গুগুলের সহযোগিতা নিয়ে তৈরি করেছি ৷ পরে এই অ্যাপকে ইংরাজি ছাড়াও অন্যান্য ভাষাতে তৈরি করব ৷ 

অর্ণবের দাবি,এই অ্যাপ থেকে একসাথে ১০০ জন ভিডিও কলিং করতে পারবে।যেকোনও টিম মিটিং বা গ্রুপ ভয়েস কলিংও করা যাবে।অন্যান্য অ্যাপে লিমিটেশন আছে,খরচও হয়ে থাকে৷ কিন্তু এতে কোনও  খরচ লাগছে না আপাতত ।এমনকী ডেটা বা তথ্য সম্পূর্ণ সুরক্ষিত থাকবে বলেই দাবি অর্ণবের ৷ এই অ্যাপ তৈরি করতে প্রায় দুমাস সময় লেগেছে।

 এই ধরনের আবিষ্কার এই বয়সের যুবকের কাছে অনেক বেশি বি,্ময়কর বলেই মনে করছেন ঘাটালের বিধায়ক শঙ্কর দোলই ৷ তিনি অর্ণবকে ফুল দিয়ে সংবর্ধনা দিয়ে এই অ্যাপকে সরকারি কাজে লাগানোর জন্য সুপারিশ করার কথা জানান ৷ তিনি বলেন- সরকার ও আমাদের দলের বৈঠক ও অন্যান্য কাজে যাতে লাগানো যায় তার জন্য বলবো ৷ তাকে আরও এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করব ৷ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সদরে কিছুদিন আগেই এক যুবক টিকটকের সমতুল্য 'ইনোসেন্স' নামের এক অ্যাপ বানিয়ে সাড়া ফেলেছিল ৷ এবার ঘাটালের যুবক অর্নবের তৈরি একসাথে ১০০ জনের ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ দৃষ্টি নিয়ে উৎসাহী ঘাটাল মহকুমা তথা জেলাবাসী।