বৃহস্পতিবার সকালে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল থানার অন্তর্গত বাইতিচক গ্রামে ধান জমির পাশে এক মহিলার অর্ধনগ্ন মৃতদেহ দেখতে পান গ্রামবাসীরা। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায়, পরে জানা যায় মৃতার নাম প্রতিমা মল্লিক (৩৫), বাড়ি চন্দ্রকোনা টাউন থানার ভাবলা গ্রামে।পুলিশ তদন্তে নেমে খুনের অভিযোগে তার স্বামীকে আটক করেছে।

পুলিশের প্রাথমিক অনুমান শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে মহিলাকে। মৃত মহিলার পরিবারের দাবি ,দীর্ঘদিন ধরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিভিন্ন কারণে গন্ডগোল চলছিল। বিবাহিত জীবনে লেগেই থাকত অশান্তি ।স্বামীর অত্যাচার চালাত মহিলার উপর। বুধবার সন্ধ্যায় অশান্তি চরমে ওঠে। মহিলা স্বামী নেপাল মল্লিক প্রচণ্ড মারধোর করে বলে অভিযোগ তুলছেন পরিবারের লোকেরা ।তাদের আরও দাবি স্বামীই ওই মহিলাকে খুন করেছেন। এরপর বাড়ি থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে মহিলার মৃতদেহ ফেলে রেখে দেয়। 

তবে অভিযুক্ত স্বামী নেপাল মল্লিক ঘটনা অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন-নিজের মধ্যে অশান্তি ঝগড়া হয়েছিল ঠিকই, তাতে মারধর করে ছিলাম। সন্ধ্যায় মারধরের পর আমি বাড়িতে ছিলাম না পাড়ার মন্দিরে গিয়েছিলাম। রাতে সেখানে ছিলাম সকালে এসে দেখি মাঠে মৃতদেহ পড়ে রয়েছে। এর বেশি কিছু জানিনা।

তবে বাড়িতেই মারধরের সময় মহিলার মৃত্যু হয়েছে না মহিলাকে ওখানে নিয়ে যে খুন করা হয়েছে তারই তদন্ত চালাচ্ছে ঘাটাল থানার পুলিশ। এই ঘটনার সাথে নেপালের সাথে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। নেপাল মল্লিক কে আটক করেছে ঘাটাল থানার পুলিশ।