চলতি মরশুমে মাঝমাঠের জন্য বার বার সমস্যায় পড়তে হচ্ছিলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কে। প্রথমে পল পোগবা এবং পরে স্কট ম্যাকটেমনির মতো গুরুত্বপূর্ণ মিডফিল্ডাররা চোট পেয়ে বেশ কিছুদিনের জন্য মাঠের বাইরে চলে যান। এই অবস্থায় মাঝমাঠে কম্বিনেশন তৈরি করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছিলো ম্যান ইউ কোচ ওলে গানারকে। তার মধ্যে শেষ রাতে ম্যান ইউ কে ছিটকে যেতে হয় লিগ কাপ থেকে। ম্যান সিটির বিরুদ্ধে দ্বিতীয় পর্বের খেলা ১-০ গোলে জিতলেও, প্রথম পর্বের খেলায় ৩-১ গোলে হেরেছিল রেড ডেভিলরা। ফলে এগ্রিগেট স্কোরে পিছিয়ে থাকায় বিদায় নিতে হয় তাদের। এই পরিস্থিতিতে ব্রুনো ফার্নান্দেজের সংযুক্তির খবর ভরসা দেবে ম্যান ইউ কোচ কে। 

বিশেষজ্ঞদের মতে ব্রুনোর মতন একজন কর্মী ফুটবলার কেই এখন দরকার ছিল ম্যানচেস্টারে। চলতি মরশুমে এখনো অবধি লীগের অপেক্ষাকৃত দুর্বল দলগুলির বিপক্ষে ভুগেছে ম্যান-ইউ। বড় দলগুলির সাথে পাল্লা দিয়ে লড়েছে রেড ডেভিলসরা। এর কারণ খুঁজে বের করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে বড় দলগুলি যখন আক্রমণে উঠে তখন গতিশীল ফরোয়ার্ডদের দিয়ে কাউন্টার অ্যাটাক করিয়ে সফল হয়েছে। সেই সময় ফাঁকা জায়গা কাজে লাগাতে সফল ম্যান ইউ এর ফরোয়ার্ডরা। কিন্তু লীগ টেবিলের নীচের দিকে দলগুলি ঘন ঘন আক্রমণে উঠে না। ডিফেন্স জমাট রেখে তবেই তারা আক্রমণের সুযোগ খোঁজে। এই অবস্থায় মিডফিল্ডারদের সাথে ফরোয়ার্ডদের বোঝাপড়ার অভাব দেখা গেছে। যার ফলে গোলের অভাব ঘটেছে। ব্রুনো ফার্নান্দেজ আসায় সেই সমস্যা দূর হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

শেষ মরশুমে স্পোর্টিংয়ের হয়ে ২০টিরও বেশি গোল করেছিলেন ব্রুনো। সেই সঙ্গে অজস্র গোলের পাস ও বাড়িয়েছিলেন। কিন্তু এত কিছু করা সত্ত্বেও মাত্র একটি ট্রফি জিততে সক্ষম হয় স্পোর্টিং। তারা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের জন্যও যোগ্যতা অর্জন করতে পারেননি। এদিকে দেশকে প্রথমবারের জন্য নেশনস লিগ জিততেও সাহায্য করেন ব্রুনো। বিশেষজ্ঞদের মতে ম্যান ইউ তে এসেও যদি একইরকম পারফরম্যান্স করে যেতে পারেন ব্রুনো তাহলে ট্রফি অধরা থাকবে না। লাভবান হবে ২ পক্ষই। সেইজন্যই ৫৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে মিডফিল্ডারটিকে তুলে আনেন ম্যান ইউ কর্তৃপক্ষ। শেষ মুহুর্তে বার্সেলোনাও ব্রুনো কে অফার দেয়। কিন্তু সেখানে প্রথম একাদশে নিয়মিত সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা কম তাই ম্যান ইউকেই বেছে নেন ব্রুনো। 

স্পোর্টিং সিপি থেকে আগেও ফুটবলার সই করিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তারা ক্লাবকে  এনে দিয়েছে অভাবনীয় সাফল্য। স্পোর্টিং থেকেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে আসেন বর্তমানে বিশ্বের সেরা ফুটবলার ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। নানি কেও স্পোর্টিং সিপি থেকেই আনা হয়েছিল ম্যান ইউতে।তাদের মতোই লাল জার্সিতে মাঠ কাঁপাবেন ব্রুনো ফার্নান্দেজ এমন স্বপ্ন ম্যান ইউ ফ্যানরা দেখতেই পারেন।