সারা দেশ জুড়ে চলতি টেলিকম সংস্থাগুলির মধ্যে প্রথম সারিতেই রয়েছে এয়ারটেল। ব্যবসায় আর্থিক চাপ বৃদ্ধির কারণে বছরের শুরুতেই পরিষেবার মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সংস্থা। বিশেষ এক বিবৃতিতে প্রকাশ করে সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছিল পরিষেবার মূল্য বৃদ্ধির বিষয়। দেশের সমস্ত সার্কেলে ২৩ টাকা নূন্যতম প্রিপেড রিচার্জ বন্ধ করা হয়েছে সংস্থার তরফ থেকে। আবারও বিরাট আর্থিক ক্ষতির তথ্য সামনে আসতেই আবারও পরিষেবার মূল্য বৃদ্ধির ঈঙ্গিত দিল সংস্থার সিইও গোপাল ভিত্তাল। 

আরও পড়ুন- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হারিয়ে যাওয়া বোন, ৭৮ বছর পর আবার দেখা

এয়ারটেল-এর সবথেকে সস্তার প্ল্যান ২৩ টাকার রিচার্জ বন্ধ হয়ে সমস্ত সার্কেলে তা করা হয় ৪৫ টাকা। আর্থিক ক্ষতির জন্য দেশের সমস্ত সার্কেলেই তাই পরিষেবার আরও মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে এয়ারটেল। সংস্থার সিইও গোপাল ভিত্তাল জানিয়েছেন, "নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করতে টেলি যোগাযোগে ট্যারিফ বৃদ্ধি করা ছাড়া কোনও উপায় নেই।" ২০১৯-২০ আর্থিক বছরের ত্রৈমাসিকে ১,০৩৫ কোটি টাকা ক্ষতির মুখোমুখি হতে হয়েছে এয়ারটেল সংস্থাকে। ২০১৮-১৯ সালের আর্থিক বছরে ৮৬ কোটি টাকা লাভ করেছিল এয়ারটেল। 

আরও পড়ুন- নতুন সংযোজন, এবার পেমেন্ট মোড সুবিধা নিয়ে শীগ্রই হাজির হবে হোয়াটসঅ্যাপ

২০১৯-২০ আর্থিক বছরের ত্রৈমাসিকে অর্থাৎ অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসে সংস্থার মোট আয়ের পরিমান ২১ হাজার ৯৪৭ টাকা। যা গত বছরের ত্রৈমাসিকের তুলনায় ১০.৫ শতাংশ বেশি। তবুও লাভের শতাংশ নেই বললেই চলে। তাই বড়সড় রকমের এই বদলের ফলে গ্রাহকদের উপর কেমন প্রভাব ফেলবে, সেই নিয়েই চিন্তিত সংস্থা। বাজারের সমস্ত বকেয়া পরিষোধ করে নিজেদের পসার টিকিয়ে রাখতে এই টেলিকম সংস্থা সক্ষম হবে কি না এই বিষয়ে প্রশ্ন উঠেছে একাধিক মহলে।