রাজ্যপালের জেলা সফর সরকারি নিয়ম লঙ্ঘন করবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের জেলা সফর নিয়ে প্রশ্ন তুলে চিঠি লিখলেন। তিনি সরাসরি জানিয়ে দেন ' তাঁর এই সফর দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে চলে আসা প্রথা ও রীতিনীতি লঙ্ঘন করবে।' প্রসঙ্গত বলা যেতে পারে গতকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে রাজ্যেপাল জানিয়েছিলেন তিনি বৃহস্পতিবারই ভোট পরবর্তী হিংসার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে বিএসএফএর হেলিকপ্টারে চড়ে জেলা সফরে যাচ্ছেন। তিনি কোচবিহারের ভোট সন্ত্রস্ত এলাকা শীতলকুচিতে যাবেন বলেও জানিয়েছেন। 

বুধবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাল্টা চিঠি লেখেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে। সেই চিঠিতেই তিনি সরকারি বিধি ও রীতির কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন রাজ্য প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের আলোচনা করেই রাজ্যপালের সফরসূচি চূড়ান্ত করা উচিৎ।সরকারি ও ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে একই নিয়ম প্রযোজ্য বলেও দাবি করেন তিনি। তবে  এক্ষেত্রে সেই নিয়ম অনুসরণ করা হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

সন্তানের জন্ম দিলেই দম্পতিকে নগদ টাকা, করোনাকালে জনসংখ্যা নীতিতে কী পরবর্তন আনছে চিন ...

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ রাজ্যপাল জেলা প্রশাসন ও  রাজ্য সরকারকে না জানিয়েই জেলা সফরসূচি চূড়ান্ত করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে রাজ্যপাল জেলা সফরের কথা জানিয়েছেন। কিন্তু রাজ্যপালের এই পদক্ষেপ রাজ্য স্বরাষ্ট্র দফতরের ১৯৯০ সালের ম্যানুয়্যাল অব প্রোটোকল অ্যান্ড সেরিমনিয়্যালস-এর পরিপন্থী বলেও সরব হয়েছে মমতা। 

এক মাসের জন্যই করোনা লড়াইয়ে হার, মহামারি রুখতে WHO আগেই জরুরি অবস্থা জারি করতে পারত ...

'দেশবাসীর প্রয়োজনে দ্রুততার সঙ্গে টিকা নিয়ে আসুন', মোদীকে চিঠি লিখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ...

ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে রীতিমত গরম রাজ্য রাজনীতি।    শপথ গ্রহণের দিনেও রাজ্যপাল রাজ্যের রাজনৈতিক হিংসা নিয়ে সরব হয়েছিলেন। ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে রাজ্যের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আসা কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের সঙ্গেও তিনি দীর্ঘ বৈঠক করেন। কিন্তু স্বারাষ্ট্র মন্ত্রকের পাঠান কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল নিয়ে রীতিমত উষ্মা প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের হিংসা নিয়ে বর্তমানে লসরব হয়েছে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাও রাজ্যের বিজেপি কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ তুলে দলীয় কর্মীদের পাশে দাঁড়াতে এসেছিলেন।