'দিদির অত্যাচারে দল ছেড়ে ভুল পথে যাবেন না',   শুক্রবার এমনটাই প্রতিক্রিয়া দিলেন  অধীর রঞ্জন চৌধুরী। উল্লেখ্য শুক্রবারই একই সঙ্গে রাজীব বন্দ্য়োপাধ্যায় মন্ত্রীসভা থেকে ইস্তফা দিয়েছেন । আবার একই দিনে বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে দল থেকে বহিস্কার করেছে তৃণমূল। এরপরেই মমতা-মোদীকে তোপ দাগেন অধীর।

 

 

প্রসঙ্গত, অনেকদিন ধরেই  রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে আসছিলেন, দায়িত্বে থেকেও কাজ করতে পারছেন না, স্বাধীনতা নেই বলে একাধিকবার ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ডোমজুড়ের বিধায়ক তথা রাজ্যের বনমন্ত্রী। দলের একাংশের বিরুদ্ধেও নাম না করে তোপ দেগেছেন রাজীব। সম্প্রতি ফেসবুক লাইভে এসেও দলের একাংশের প্রতি নিজের অভিযোগ-অভিমানের কথা বলেছিলেন তিনি। এরপর শুক্রবারই একই সঙ্গে রাজীব বন্দ্য়োপাধ্যায় মন্ত্রীসভা থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। ওদিকে আবার বিকেল গড়াতেই  একই দিনে বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে দল থেকে বহিস্কার করেছে তৃণমূল। অভিযোগ, প্রকাশ্য়ে দলের নেতা-মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় নানা অভিযোগ এনেছিলেন বৈশালী। এমনকি মন্ত্রী অরুপ রায়ের বিরুদ্ধে একাধিক কথা বলেছেন তিনি। এর পরপরই বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে বহিষ্কার করা হয়েছে। 

 

 

এরপর শুক্রবার রাজীব-বৈশালী প্রসঙ্গে ফারাক্কায় প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি বলেন, 'তৃণমূল ছেড়ে যারা পালাচ্ছেন বা পালাবেন বলে ঠিক করে ফেলেছেন, আমি তাঁদের বলছি ভুল পথে পা বাড়াবেন না। দিদি-মোদীর মধ্য়ে কোনও ফারাক নেই।'