এবারের বাংলা বিধানসভা নির্বাচনে দারুণ জনপ্রিয় হয়েছে 'খেলা হবে' স্লোগান। তৃণমূলের তোলা এই স্লোগানকে কটাক্ষ করছেন দিল্লির কেন্দ্রীয় নেতারাও। আর, শনিবার হরিপালের জনসভা থেকে সেই খেলার প্রসঙ্গ টেনেই মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের গেম ওভার করে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

এদিন প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, 'যদি কোনও খেলোয়াড় বার বার আম্পায়ারকে নিয়ে প্রশ্ন তোলে, আমরা বুঝতে পারি তার খেলাতেই কিছু সমস্যা আছে। রাজনীতিতে, কেউ যদি বার বার ইভিএম বা নির্বাচন কমিশনকে নিয়ে প্রশ্ন তোলে, আমারা বুঝতে পারি তার গেম ওভার, খেলা শেষ। দিদি, আপনার সামনে হার অপেক্ষা করছে। এবার তো স্বীকার করে নিন।'

নির্বাচন ঘোষণার দিন থেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, বিজেপিকে সুবিধা করে দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। প্রথম অভিযোগ ছিল ৮ দফায় নির্বাচন করা হচ্ছে বিজেপি নেতাদের প্রচারে সুবিধা হবে বলে। নন্দীগ্রামে ভোটের দিন বলেছিলেন নির্বাচন কমিশন স্পষ্টতই বিজেপির হয়ে কাজ করছে। কারণ তাঁরা ৬৩টি অভিযোগ করলেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বারেবারেই, নির্বাচন কমিশনকে নিশানা করছেন মমতা। এমনকী, ভোট প্রক্রিয়াও নির্বাচন কমিশন নয়, অমিত শাহই পরিচালনা করছেন, প্রকাশ্য জনসভায় এমন অভিযোগ করেছেন তৃণমূল নেত্রী। কেন্দ্রীয় বাহিনীও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অঙ্গুলী হেলনেই চলছে বলে অভিযোগ করেছেন।  

এদিন, হুগলির হরিপালের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আরও অভিযোগ করেন, তৃণমূল কংগ্রেস পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত নির্বাচন লুট করেছে। তৃণমূল পার্টি অফিস থেকেই রাজ্য প্রশাসন পরিচালিত হচ্ছে। তৃণমূল কংগ্রেসের সিন্ডিকেট হুগলি নদীও নষ্ট করেছে। অবৈধ নির্মাণ ও শিল্প বর্জ্যের বিরুদ্ধে কোনও কার্যকর নীতি নেই মমতা সরকারের। নরেন্দ্র মোদীর অভিযোগ, এর কারণ তৃণমূলের সিন্ডিকেটরাজই এই  অবৈধ নির্মাণকাজ চালায়। বেশ কয়েকটি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টও কাজ করে না।