বাংলার বিধানসভা ভোটের দায়িত্বে থাকা উপনির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈনকে তাঁর পদ থেকে সরানোর দাবি তুলল তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ সৌগত রায় সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন তাঁদের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও'ব্রায়ন সুদীপ জৈনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতদুষ্টতার অভিযোগ তুলে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিককে।। 

সৌগত রায়ের অভিযোগ সুদীপ জৈন রাজ্য পুলিশকে এড়িয়ে কাজ করছেন। তারপরই তিনি আরও একবার রাজ্যে আট দফা ভোটের প্রসঙ্গ তোলন। আর একই সঙ্গে বাংলার নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা সুদীপ জৈনের অপসারণের দাবিতে সরব হন। তিনি বলেন এর আগেও সুদীপ জৈনের পক্ষপাতদুষ্ট আচরণের বিরুদ্ধে তাঁরা সরব হয়েছিলেন। ২০১৯ সালে অমিত শাহের মিছিলেন সময় বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙায় ভুল রিপোর্ট দিয়েছিলেন। সেই সময় উনি প্রচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ তুলেছেন সৌগত রায়। কুইক রেসপন্স 
টিম চালু করেছিলেন যা সংবিধান বহির্ভূত কাজ বলেও দাবি করেছেন তৃণমূল নেতা। দলীয় সূত্রে খবর একই বিষয় উঠে এসেছে ডেরেকের চিঠিতে। ডেরেক লিখেছেন কেন্দ্রীয় বাহিনী ও সিআরপিএফ ও রাজ্য পুলিশকে নিয়ে গঠিত কুইক রেসপন্স টিমের নেতৃত্ব একজন সিআরপিএফ আধিকারিককে রাখার ব্যবস্থা চালু করেছিলেন সুদীপ জৈন। যা ভারতীয় সংবিধানের সপ্তম তফসিলের দুনম্বর ধারার বিপরীত। কারণ ধারা অনুযায়ী আইন শৃঙ্খলা রক্ষার বিষয়টি রাজ্যের এক্তিয়ারভূক্ত। এমন সিদ্ধান্ত দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর পরিপন্থী বলেও চিঠিতে জানিয়েছেন ডেরেক। 


অন্যদিকে সৌগত রায় আশঙ্কা করছেন নিরেপক্ষ ভোট গ্রহণ নিয়েও। তিনি বলেন কমিশন বিজেপির পাশে রয়েছে। আর সেই কারণে নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণ হবে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। অন্যদিকে ডেরেকের চিঠি নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন। কারণ চিঠি পাঠান হয়েছে রাজ্যের মুখ্য নির্বাচন আধিকারিকের দফতরে। উপ নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে কোনও পদক্ষেপ নেওয়ার এক্তিয়ার তাঁর নেই।