নিরাপত্তার বেষ্টনীর ফাঁক গলে যখন মুখ্যমন্ত্রীর কাছাকাছি চলেই এসেছেন, তখন কি আর একটি সেলফি না তুললে চলে! দিঘায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ছবি তুলতে গিয়ে সমুদ্রের জোয়ারে ধাক্কা গুরুতর আহত হলেন এক পর্যটক। কোনওমতে তাঁকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে নুলিয়ায়। ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর পুলিশি নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

আহত ওই পর্যটকের নাম অজয় দে। বাড়ি কলকাতার টালিগঞ্জে। বুধবার ১১ জনের একটি দলের সঙ্গে সস্ত্রীক দিঘায় বেড়াতে এসেছেন অজয়।   দিঘায় এখন চলছে বাণিজ্য সম্মেলন। সম্মেলনে উদ্বোধন করতে সৈকতশহরে হাজির স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যখন তিনি দিঘায় সমুদ্র সৈকতে হাঁটতে বেরিয়েছিলেন, তখন নিরাপত্তা বেষ্টনী গলে অজয় মুখ্যমন্ত্রীর খুব কাছাকাছি পৌঁছে যান বলে জানা গিয়েছে।  প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সেলফি তোলার চেষ্টা করছিলেন তিনি।  সমুদ্রে জোয়ার আসায় ওই পর্যটককে বারবার সতর্ক করেছিলেন নুলিয়ারা। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি। শেষপর্যন্ত সমুদ্রের জোয়ারের ধাক্কায় ছিটকে পড়ে জ্ঞান হারান অজয় দে। কোমরেও গুরুতর আঘাত লাগে। কোনওমতে তাঁকে উদ্ধার করে  দিঘায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

বছরভরই পূর্ব মেদিনীপুরের সৈকতশহর দিঘায় পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে। সপ্তাহের ছুটি কিংবা উৎসবের সময়ে তো তিলধারণের জায়গা থাকেন। সমুদ্রে স্নান করতে অসাবধানতা কারণে প্রায়শই বিপদেও পড়েন পর্যটকরা।  দিঘায় দুর্ঘটনায় ঠেকাতে একাধিক পদক্ষেপ করেছে প্রশাসন। সমুদ্র সৈকত রীতিমতো মাইকিং করে যেমন পর্যটকদের সতর্ক করা হয়, তেমনি মোতায়েন করা হয়েছে নুলিয়াদেরও।  কিন্তু এতকিছুর পরেও যে পর্যটকদের হুঁশ ফেরেনি, বৃহস্পতিবার ঘটনাই তার প্রমাণ। শুধু তাই নয়, নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেদ করে ওই পর্যটক কীভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছাকাছি পৌঁছে গেলেন, তা নিয়েও কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে।