আশঙ্কাটা শনিবারই হয়েছিল। বিজেপির পশ্চিমবঙ্গের সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, ২১-এ জুলাইয়ের সভামঞ্চে যেতে গেলে বাস আটকে কাটমানি ফেরত চাওয়া হবে। রবিবার হুগলির সিঙ্গুরের গুড়াপে তৃণমূল কর্মীদের তিনটি বাসে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল।

জানা গিয়েছে তৃণমূলের পতাকা, ব্যানারে সজ্জিত ওই তিনটি বাসে করেই হুগলী জেলার তৃণমূল কর্মীরা কলকাতার ধর্মতলায় ২১ জুলাই -এর সভামঞ্চে আসছিলেন। আচমকাই তাদের পথ আটকে বেশ কিছু দুষ্কৃতী পাথর ছুড়তে শুরু করে। ভেঙে যায় বাসের জানলার কাঁচ। অল্প বিস্তর আহত হন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা।

এই ঘটনার পিছনে বিজেপির হাত রয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। প্রতিবাদে তাঁরা সিঙ্গুরের রতনপুরে পথ অবরোধ করেন। আধঘন্টা মতো রাস্তা আটকে রাখার পর পুলিশের সঙ্গে কথা বলে তাঁরা অবরোধ তুলে নেন। তারপর আবার তারা সভার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। তবে সভার পর ঘরের ফেরার পথে ফের হামলা হতে পারে বলে তাঁরা আশঙ্কা করছেন।