জলের ট্যাঙ্ক ভেঙে পড়ার ঘটনা বাঁকুড়ার সারেঙ্গার ফতেডাঙ্গা গ্রামে সরজমিনে তদন্তে এলেন জনস্বাস্থ্য কারিগরি দফতরের তিন সদস্যের এক প্রতিনিধি দল। বৃহস্পতিবার  ঐ প্রতিনিধি গ্রামে পৌঁছন। ঘটনাস্থলে গিয়ে ভেঙে পড়া জলের ট্যাঙ্কটির নমুনা সংগ্রহ করেন তারা।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করে ঐ ট্যাঙ্কটি তৈরি করা হয়েছিল। তাতেই বিপত্তি হয়েছে। এদিন সকালে স্থানীয় বিজেপি সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার ঐ এলাকায় পৌঁছে শাসকদলের নেতাদের বিরুদ্ধে 'কাটমানি'র  পাশাপাশি রাজ্যে 'সিণ্ডিকেট রাজ' চলছে বলে অভিযোগ তোলেন।

এদিন জনস্বাস্থ্য কারিগরী দফতরের চিফ ইঞ্জিনিয়ার মহসিন আলি খান, হরিসাধন দাস ও অমিতাভ দত্ত ঐ এলাকায় এসে ঘটনার সরজমিনে তদন্ত করেন। পাশাপাশি ভেঙে পড়া জলের ট্যাঙ্কটির নমুনা সংগ্রহ করেন। পরে ঐ প্রতিনিধি দলের সদস্য হরিসাধন দাস বলেন, আমরা নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যাচ্ছি। যথাসময়ে দফতরে তদন্ত রিপোর্ট জমা করা হবে।
গতকাল বিকট শব্দে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে জলের ট্যাঙ্ক।  জলের তোড়ে ভেসে যায় ট্যাঙ্কের পার্শ্ববর্তী প্রাচীর। আতঙ্ক ছড়াল বাঁকুড়ায়। ঘটনার প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানের জন্য কমিটি গঠন করার ঘোষণা করেন জনস্বাস্থ্য ও কারিগরি মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। 

গরমে পড়লে এলাকায় পানীয় জলের সংকট তীব্র হয়। বছর দুয়েক আগে বাঁকুড়ার সারেঙ্গায় ওই জলের ট্যাঙ্কটি তৈরি করেছিল জনস্বাস্থ্য ও কারিগরি দফতর। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে, বুধবার দুপুরে বিকট শব্দ শুনতে পান তাঁরা। গ্রামের পাশে  ফাঁকা জমিতে গিয়ে দেখেন, জলের ট্যাঙ্কের পিলারের একাংশ ভেঙে পড়েছে।  কিছুক্ষণ পর হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে ট্যাঙ্কটিও। ঘটনার পর জলের তোড়ে ভেসে যায় গোটা এলাকা।