খোদ মন্ত্রীর দাদার বাড়িতে জোড়া রহস্যমৃত্যু। আর তা ঘিরেই চাঞ্চল্য ছড়ালো আসানসোলের হিন্দুস্তান পার্ক এলাকায়। তালাবন্ধ বাড়ির ভিতর থেকে উদ্ধার করা হয় রাজ্যের শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটকের বউদি এবং ভাইঝির মৃতদেহ। বছর দুয়েক আগেই অবশ্য দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে মলয়বাবুর দাদা অসীম ঘটকের। 

স্থানীয় সূত্রে খবর, আসানসোলের হিন্দুস্তান পার্ক এলাকায় মেয়ে নীলমকে নিয়ে থাকতেন জয়শ্রী ঘটক। বাইরের লোকজনের সঙ্গে সেভাবে মিশতেন না তাঁরা। এজাজ বলে স্থানীয় এক ব্যক্তি মাঝেমধ্যে এসে তাঁদের খাবার দিয়ে যেতেন। গত দু' তিন দিন ধরেই তালাবন্ধ বাড়ির ভিতর থেকে দুর্গন্ধ বেরোচ্ছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এ দিন সকালে তা তীব্র আকার ধারণ করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন স্থানীয় কাউন্সিলর স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিই মলয়বাবুর আর এক ভাই অভিজিৎ ঘটককে খবর দেন। একই সঙ্গে খবর দেওয়া হয় আসানসোল দক্ষিণ থানায়। 

কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দরজা ভেঙে বাড়িতে ঢোকে। দেখা যায়, একটি ঘরের মধ্যে মৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে জয়শ্রীদেবী এবং নীলমের দেহ। মৃতদেহের অবস্থা দেখে প্রাথমিকভাবে পুলিশ এবং স্থানীয়দের অনুমান, দু'-তিন দিন আগেই দু' জনের মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে। 

মৃতদেহ দু'টি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। তবে প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান, মানসিক অবসাদ থেকেই সম্ভবত আত্মঘাতী হয়েছেন মা এবং মেয়ে। এই ঘটনায় এখনও মলয় ঘটকের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া সম্ভব হয়নি। এ দিন কলকাতাতেই ছিলেন তিনি। বছর দুয়েক আগে মহালয়ার দিন তর্পণ করার সময় আসানসোলেই জলে ডুবে মৃত্যু হয়েছিল মলয়বাবুর দাদা অসীম ঘটকের।