রুজির টানে কাশ্মীরে গিয়ে জঙ্গি হামলায় প্রাণ গিয়েছেন বাংলার পাঁচ শ্রমিকের। মৃতদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা করে আর্থিক সাহায্য করেছে রাজ্য সরকার। বুধবার মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘিতে জনসভা সেরে বাহালনগর গ্রামে কাশ্মীরে নিহত শ্রমিকদের বাড়িতে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  পরিবারকে চাকরি আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

বেশি রোজগারের আশায় বাংলা থেকে কাশ্মীরে কাজ করতে গিয়েছিলেন ৬ শ্রমিক। তাঁদের সকলেরই বাড়ি মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘির বাহালনগর গ্রামে।  কুলগ্রামে পাঁচজনকেই নৃশংসভাবে গুলি করেছে জঙ্গিরা। কোনওমতে প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন একজন। নিহতদের পরিবারে পাশে দাঁড়িয়েছে রাজ্য সরকার। কলকাতা থেকে দেহগুলি নিয়ে যেদিন সাগরদিঘির বাহালনগর গ্রামে পৌঁছন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, সেদিনই গ্রামে গিয়ে পরিবারের হাতে রাজ্য সরকারের তরফে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন আর এক মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। এমনকী, কুলগামে জঙ্গি হামলার পর, কাশ্মীরে কর্মরত বাঙালি শ্রমিকদের রাজ্যে ফিরিয়ে আনার ব্য়বস্থাও করেছে নবান্ন। বুধবার বাহালনগরে গিয়ে নিহত শ্রমিকদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

উত্তরবঙ্গ থেকে জেলা সফর শুরু করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  মঙ্গলবার সকালে মালদহ থেকে মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘিতে পৌঁছন তিনি। সাগরদিঘিতে জনসভায় কাশ্মীরে নিহত শ্রমিক পরিবারকে রাজ্য সরকারের 'সমর্থন' প্রকল্পের আওতাভুক্ত করার ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। বাংলা আবাস যোজনায় তাঁদের জন্য বাড়িও তৈরি করে দেবে রাজ্য সরকার। জনসভা সেরে সোজা বাহালনগর গ্রামে নিহত শ্রমিকদের বাড়িতে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরিবারের সদস্য়দের সঙ্গে কথা বলেন, দেন চাকরি প্রতিশ্রুতিও।