এমনিতে সে আর পাঁচটা রাস্তার কুকুরের মতোই। তফাত বলতে পোষ্য হিসেবে দার্জিলিংয়ের সোনাদার একটি বাড়িতে থাকে সে। কিন্তু রবিবার দার্জিলিংয়ের ম্যালের ডগ শোতে নামী, দামি নানা প্রজাতির সারমেয়দের মধ্যেও টাইগারকে নিয়েই উৎসাহী সবাই। কারণ টাইগারের সাহসও যে টাইগারের মতোই। চিতার আক্রমণ থেকে নিজের মালকিনকে বাঁচানোর জন্য জিটিএ আয়োজিতে ডগ শোতে রবিবার সম্মানিত করা হল টাইগারকে। পোষ্য এই সারমেয়র মালিকের হাতে বিশেষ সন্মান তুলে দেন দার্জিলিং জেলার পুলিশ সুপার অমরনাথ কে। দার্জিলিং ফেস্টের অঙ্গ হিসেবে রবিবার এই ডগ শো আয়োজিত হয় দার্জিলিংয়ের ম্যালে।

রবিবারের ডগ শোতে সিকিম, কলকাতা-সহ দার্জিলিং ও শিলিগুড়ির কমবেশি একশোটি পোষ্য কুকুর অংশ নিয়েছিল। অংশ নিয়েছিল দার্জিলিংয়ের সোনাদার নয়াগাঁওয়ের বাসিন্দা অরুণা লামার পোষ্য টাইগারও। ডগ শো চলাকালীন জিটিএর তরফে ওই পোষ্যকে বিশেষ সন্মান প্রদান করা হয় সাহসিকতার জন্য। 

উদ্যোক্তাদের তরফে সুরজ শর্মা বলেন, 'আমাদের পক্ষ থেকে টাইগারকে বিশেষ সন্মান প্রদান করা হয় তার সাহসিকতার জন্য৷ কারণ আমরা লক্ষ্য করেছি বরাবরই চিতাবাঘ কুকুরের উপর হামলা করে। যদিও এক্ষেত্রে দেখলাম যে এই পোষ্য কুকুরটি নিজের মালকিনকে বাঁচাতে উল্টে চিতাবাঘকে পাল্টা আক্রমণ করে তাড়িয়ে দিয়েছিল।'

উল্লেখ্য, গত ১৬ অগাস্ট রাতে অরুণা লামার বাড়িতে হানা দিয়েছিল একটি চিতাবাঘ। রাতের অন্ধকারে মুরগির আওয়াজ শুনে ঘরের বাইরে বেরোতেই চিতাবাঘের সামনে পড়ে যান তিনি। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে প্রাণে বাঁচতে ছুঁটে পালাতে চাইলে আক্রমণ করে চিতাবাঘটি৷ ওই মহিলার মাথা, মুখে থাবা বসায়ল চিতাবাঘটি৷ প্রাণে বাঁচতে চিৎকার করেন অরুণাদেবী৷ তাঁর চিৎকার শুনে ছুটে আসে বাড়িতে থাকা পোষ্য কুকুর টাইগার৷ চিতাবাঘের উপর পাল্টা হামলা চালায় সে। মূহুর্তের মধ্যেই পালিয়ে যায় চিতাবাঘটি। প্রাণে বাঁচেন অরুণাদেবী। 

এর পর থেকেই টাইগারের নাম ছড়িয়ে পড়ে পাহাড় সমতলে। ল্যাব্রেডর বা ডোভারম্যানের মতো কোনও বিশেষ প্রজাতির নয়, টাইগার কিন্তু আদতে একটি সাধারণ কুকুরই। কিন্তু সাহসিকতার দিক থেকে তার জুড়ি মেলা ভার। দার্জিলিংয়ে এখন রীতিমতো সেলিব্রিটি সারমেয় বলাই যায় তাকে। সবাই একবাক্যে তার সাহসিকতাকে কুর্নিশ জানান। ডগ শোতে আসা পর্যটকরাও টাইগারের কীর্তি শুনে অবাক। সবাই একবার দেখতে চায় তাকে। নিজের পোষ্যকে নিয়ে রীতিমতো গর্বিত অরুণাদদেবীও।