পড়ুয়ারা যদি পুলকার ব্যবহার করে, সেক্ষেত্রে অভিভাবকদের আগে থেকে স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। জমা দিতে হবে চালকের ছবি, ড্রাইভিং লাইন্সেসের কপি, এমনকী গাড়ি ফিটনেস সার্টিফিকেটও। জানালেন খোদ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। অভিভাবকদের তাঁর পরামর্শ, 'সস্তায় বাজিমাত করতে গিয়ে পড়ুয়াদের বিপদে ফেলবেন না।' শুধু মুখের কথাই নয়, পুলকার নিয়ে শিক্ষাদপ্তর নয়া নির্দেশিকাও জারি করেছে।

পোলবার ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার কলকাতায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ল একটি পুলকার। শুক্রবার সকালে পড়ুয়াদের নিয়ে দ্রুত গতিতে যাচ্ছিল ওই পুলকারটি। উল্টোডাঙায় কলকাতা স্টেশনের কাছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুলকারটি ধাক্কা মারে একটি স্কুটারে। আহত স্কুটারের চালক ও মহিলা যাত্রী। এদিকে এই দুর্ঘটনার পর পুলকারটিকে ধরে ফেলেন স্থানীয় বাসিন্দারাই। দেখা যায়, কর্মাশিয়াল নম্বর নয়, পুলকার চলছে প্রাইভেট নম্বরে। শুধু তাই নয়, পুলকারের ভিতরে পড়ুয়াদের সিট বেল্টও বাঁধা ছিল না বলে অভিযোগ। পুলকারটি কাগজপত্র বাজেয়াপ্ত করেছে উল্টোডাঙা থানার পুলিশ। 

আরও পড়ুন: পোলবার কান্ডে নড়ে চড়ে বসল প্রশাসন, শহরে পুলকার তল্লাশিতে ধরা পড়ল ভয়াল চিত্র

এর আগে শুক্রবার সকালে পড়ুয়াদের স্কুল নিয়ে যাওয়ার পথে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি পুলকারে পড়ে যায় রাস্তায় পাশে নয়ানজুলিতে। দুর্ঘটনা ঘটে হুগলির পোলবায়। গুরুতর জখম অবস্থায় দুই পড়ুয়া ভর্তি কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে।  তাদের নাম ঋষভ সিং ও দিব্যাংশ সিংহ। দু'জনেই কোমার প্রথম পর্যায়ে রয়েছে। হাসপাতাল সুত্রে খবর,  ঋষভের ফুসফুসে এখনও আটকে রয়েছে কাদাজল। মাথাতে আঘাত লেগেছে তার।  তবে ট্রমা কেয়ার সেন্টার চিকিৎসাধীন দিব্যাংশের ফুসফুস থেকে কাঁদাজল বের করা গিয়েছে।  ধীরে ধীরে সক্রিয় হচ্ছে তার ফুসফুস।