রাজনৈতিক হিংসার বলি নাকি অবৈধ সম্পর্কের জের। মহিলা খুন নিয়ে জোরা সংশয় পুলিশের। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর চব্বিশ পরগণার হাসনাবাদে। মৃতা কোন দলের সমর্থক, তা নিয়েও তৃণমূল এবং বিজেপি-র মধ্য শুরু হয়েছে চাপানউতোর। 

বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাটি ঘটে হাসনাবাদের তোকিপুরের চারা বটতলা এলাকায়। বাড়ি থেকে বেরনোর পরেই সরস্বতী দাস নামে ওই মহিলার মাথায় গুলি করে পালায় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর। মৃতদেহ উদ্ধার করে টাকি গ্রামীণ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। মৃতার স্বামী শুভঙ্কর দাসের অবশ্য দাবি, তাঁর স্ত্রী সক্রিয় তৃণমূল কর্মী ছিলেন। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেও তিনি তৃণমূলের হয়ে এলাকায় সক্রিয়ভাবে কাজ করেছিলেন। কিন্তু কেন তাঁকে খুন করা হল, তা নিয়ে কিছু বলতে পারেননি মৃতার স্বামী।

এ দিকে ওই গৃহবধূর মৃত্যুর পরে তাঁকে নিজেদের দলের সমর্থক বলে দাবি করেছেন বিজেপি-র স্থানীয় নেতারা। এবারের লোকসভা নির্বাচনেও তিনি বিজেপি-র হয়ে কাজ করেছেন বলে দাবি তাঁদের। মৃতার স্বামী শুভঙ্কর দাস অবশ্য সেই দাবি নস্যাৎ করেছেন। 

কিন্তু রাজনৈতিক কারণেই সরস্বতীদেবীকে খুন করা হয়েছে কি না, তা নিয়ে এখনও সংশয়ে পুলিশ। কারণ বেশ কিছু দিন ধরেই ওই মহিলার সঙ্গে এলাকার এক ব্যবসায়ীর বিবাহ বহির্ভূত সম্পরক ছিল বলে পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে খবর। ফলে, ঠিক কী কারণে ওই মহিলাকে খুন করা হল, তা জানতে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। খোঁজ চলছে আততায়ীদের।