একে পরের পর নির্বাচনে পাহাড়ে দলের ব্যর্থতা। তার উপরে দলের জেলা সভাপতি হয়েও প্রকাশ্যেই বার বার দলের দুর্বলতা স্বীকার করা। এই দুইয়ের জেরেই এবার দার্জিলিং জেলা তৃণমূল সভাপতির পদ হারালেন পর্যটবন মন্ত্রী গৌতম দেব। নতুন জেলা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হল শিলিগুড়ি পুরসভার বিরোধী দলনেতা রঞ্জন সরকারকে। তিনিও অবশ্য দায়িত্ব নিয়ে স্বীকার করে নিয়েছেন, দার্জিলিং জেলায় সাংগঠনিকভাবে সত্যিই শাসক দল দুর্বল। 

তৃণমূল কংগ্রেস সূত্রের খবর, একাধিক দলীয় সভা, সমাবেশে বারবারই প্রকাশ্যে দলকে দুর্বল বলে মন্তব্য করছিলেন গৌতমবাবু। যা নিয়ে দলের অন্দরেই ক্ষোভ বাড়ছিল। এর পর পুরসভা, বিধানসভা এবং লোকসভাতেও দার্জিলিং জেলায় দলের ফল খারাপ হয়। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে পর্যটন দফতরের দায়িত্ব দেওয়া হয় গৌতম দেবকে। তার পরেও জেলায় পর পর নির্বাচনে হারতে হচ্ছিল তৃণমূলকে। সভাপতির দল পরিচালনার দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দলের অন্দরেই। সম্প্রতি এক যুব নেতা ফেসবুক পোষ্টের মাধ্যমে জেলা সভাপতির পদত্যাগ দাবি করায় আরও অস্বস্তিতে পড়ে দল। এর পরেই জেলা কমিটি ভেঙে তা পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস বলেন, দলের নির্দেশ মেনেই জেলা কমিটি ভেঙে নতুন করে তৈরি করা হল। অনেক নতুন মুখ জেলা কমিটিতে জায়গা পেয়েছে।

গৌতমবাবুকে অবশ্য উত্তরবঙ্গে দলের কোর কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে। অস্বস্তি কাটাতে তিনি বলেন, 'নতুনদের জায়গা করে দিতে হয়৷ তবে, অভিভাবক হিসেবে আমি রয়েছি।' নতুন জেলা সভাপতি রঞ্জন সরকার বলেন, 'এই জেলায় দল যে সাংগঠনিকভাবে দুর্বল, তা অস্বীকার করার জায়গা নেই। 

একাধিক নির্বাচনে হারের মুখোমুখি হতে হয়েছে আমাদের। তবে, এবার কিন্তু আমরা দলকে চাঙ্গা করতে বুথ লেভেল থেকে কাজ শুরু করব। পাশাপাশি, বিজেপির বিরুদ্ধেও শক্ত হাতে আন্দোলন শুরু হবে।'