বৌদির সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে। যার জেরে মানসিক অবসাদে আত্মঘাতী হলেন গৃহবধু । ঘটনাটি ঘটেছে হরিদেবপুর থানার পশ্চিম পুটিয়ারি করুণাময়ী মেন রোডে। 

সূত্রের খবর,আট বছর আগে শিপ্রা দের বিয়ে হয়েছিল অভিয়ুক্তের সঙ্গে। অভিযোগ বিয়ের পর থেকেই স্ত্রীর সঙ্গে বনিবনা ছিল না  স্বামীর। এলাকাবাসীরা জানান, মাসে বউয়ের কাছে ১০-১২ দিনের জন্য আসতেন শিপ্রার স্বামী। মহিলার বাপের বাড়ির অভিযোগ,ওই সময়তেও বউয়ের ওপর অত্যাচার চালাত অভিযুক্ত।

স্থানীয় সূত্রে খবর,অভিযুক্তের সঙ্গে বৌদির অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। তাঁদের অভিযোগ, সেই সম্পর্ক নিয়েই মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন মহিলা ।এ বছর পুজোর আগে থেকে স্বামীর সঙ্গে কোনও যোগাযোগ ছিল না শিপ্রার। কদিন আগেই স্বামীর কাছে গিয়েছিলেন ওই মহিলা। স্থানীয়রা জানান, স্বামীর বাড়িতে ঢুকতে গেলে মারধর করা হয় মহিলাকে। সেখান থেকে অপমানিত হয়ে বাপের বাড়িতে ফিরে আসেন শিপ্রা। পরে বাড়ির লোকেরা মহিলাকে বোঝান। তারপর যে যার বাড়ি চলে যান। জানা গেছে রাতে বাড়িতে একা ছিলেন ওই মহিলা।

এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সংসার টানতে বাড়িতেই মুদি দোকান চালাতেন শিপ্রা। এদিন সকালে মুদিখানায় জিনিস কিনতে গেলে শিপ্রাকে আগুনে জ্বলছে দেখতে পান এক ক্রেতা। তিনি চিৎকার করতেই বেরিয়ে আসেন প্রতিবেশীরা। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঘটনার পর থেকেই  শিপ্রার স্বামী পলাতক।