করোনা আবহে গণেশ চতুর্থীর দিন থেকেই শারদ উৎসবের গন্ধ পুরুলিয়ার নিতুড়িয়ায়। শনিবার গনেশ চতূর্থীর দিন অনাড়ম্বরভাবে খুঁটি পুজোর মধ্য দিয়ে পুরুলিয়া জেলার অন্যতম বিগ বাজেটের পুজো “নিতুড়িয়া দুবেশ্বরী কলিয়ারী সর্বজনীন দুর্গাপূজা কমিটি”-র মণ্ডপ তৈরির কাজ শুরু হলো। অন্যান্য বছরের মতো এ বছর ধূমধামের করে গোটা এলাকার মানুষের উপস্থিতিতে নয় , করোনার আবহে পুজো কমিটির গোটা কয়েক সদস্যদের নিয়েই পুজো কমিটিকে সারতে হল খুঁটি পুজো। 

খুঁটি পূজার মাধ্যমে দুর্গাপূজোর কাউন্টডাউন শুরু হল এই দুর্গাপূজা কমিটির। এই কমিটির নিজস্ব  মন্দির থাকলেও মূলত থিম পুজোর মধ্য দিয়ে জনগণের কাছে বার্তা তুলে ধরেন কমিটির কর্মকর্তারা। প্রতিবছরই তাই সরকারি বেসরকারি পুরস্কার আসে এই পুজো কমিটির ঝুলিতে। এ বছরের থিম  "মহিষাসুরের পর করোনাসুরের বিরুদ্ধে লড়াই' । পুজা কমিটির সেক্রেটারি বুলা পাণ্ডে ও সভাপতি  গৌতম বাউরি জানান, এ বছর আমাদের পুজো ৩০ বছরে পদার্পন করল। বিশ্বত্রাস করোনার জন্য আমরা সরকারি গাইডলাইন মোতাবেক  সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খুঁটিপুজোর অনুষ্ঠান করলাম।

করোনার সচেতন বার্তা জনসমক্ষে উপস্থাপন করাই এবারের পুজোর থিমের মূল উদ্দেশ্য। পুজো কমিটির পক্ষ থেকে নবনী চক্রবর্তী বলেন, রাজ্য সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব মেনে ও মুখে মাস্ক পরে খুঁটি পুজোর অনুষ্ঠান করা হোল। তবে পুজো কমিটি এখনই পুজোর বাজেট সম্পর্কে বা কিসের আদলে পুজো মণ্ডপ হবে এ বিষয়ে মুখ খুললেন না।

পুরুলিয়া বরাকর রাজ্য সড়কের পাশে আসানসোল শিল্পাঞ্চল ঘেঁষা  নেতুড়িয়া দুবেস্বরী কোলিয়ারির পুজো দেখতে ভিড় জমান এ রাজ্যে ছাড়াও পার্শ্ববর্তী ঝাড়খণ্ড রাজ্যের বহু মানুষ। এ পূজা মন্ডপে তাই প্রতি বছর রেকর্ড ভিড় হয়। কিন্তু এবারে করোনা আবহে সেই ছবি হয়তো চোখে পড়বে না বলে জানান উদ্যোক্তারা।