আগে বলেছিলেন  দিল্লির হিংসা একটা পরিকল্পিত  গণহত্যা। এবার মালদহের মঞ্চ থেকে ফের দিল্লির হিংসা নিয়ে সরব হলেন  মুখ্যমন্ত্রী।  দিল্লির ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চাইলেন মমতা। তাঁর দাবি, সুপ্রিম কোর্টের অধীনে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হলেই আসল সত্য  বেরিয়ে আসবে। 

সোমবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়াম থেকে দিল্লির হিংসা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে একহাত  নিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। এবার একধাপ এগিয়ে দিল্লির  হিংসার  ঘটনার তদন্ত সুপ্রিম  কোর্টের অধীনে হওয়া উচিত বলে মন্তব্য় করেন মমতা।  মুখ্য়মন্ত্রী বলেন, দিল্লিতে মৃতদেহের পাহাড় পাওয়া যাচ্ছে। এখনও ৭০০ মানুষ নিখোঁজ। অনেক মৃতদেহ শনাক্ত করা যাচ্ছে না। দিল্লি হিংসায় যাঁরা যারা মারা গিয়েছে, তারা হিন্দু না মুসলিম, জবাব দিতে হবে ওদেরকে। অমিত  শহদের কটাক্ষ করে মুখ্য়মন্ত্রীর বলেন, দিল্লির মতো ছোট জায়গায় যারা আইন-শৃঙ্খলা সামলাতে পারেন না, তাদের বাংলা নিয়ে কথা  বলছে। এটা ওদের সাজে না।  

এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি মমতা। মুখ্য়মন্ত্রীর দাবি, দিল্লির হিংসা থেকে নজর ঘোরাতেই করোনা ভাইরাসের মতো বিষয়কে বেশি বেশি করে দেখাচ্ছে 'গোদী মিডিয়া'।বুনিয়াদপুরে সংবাদমাধ্য়মের সমালোচনা করে মমতা বলেন,  আমরা চাই ওষুধ বের হোক৷ কিন্তু যাঁরা দিল্লিতে মারা গিয়েছেন তাদের কারও করোনা বা বিজেপির ডেঙ্গু হয়নি৷ করোনার মতো মারণ রোগে মারা গেলে সান্তনা দেওয়ার থাকত৷ কিন্তু এরা সুস্থ মানুষগুলোকে জ্যান্ত মেরে দিল৷

গতকালই টুইটারে করোনা নিয়ে মন্তব্য় করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। টুইটে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, নোভেল করোনাভাইরাসের কারণে এই বছর তিনি কোনওরকম দোলের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন না।  পৃথিবীজুড়ে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন-একসঙ্গে যাতে বহু সংখ্যক মানুষ দোলের অনুষ্ঠানে যোগ না দেন। এতে করোনাভাইরাস ছড়ানোর আশঙ্কা থাকবে। রাজ্য় রাজ্নৈতিক মহলের মতে, নাম না করে আসলে মোদীকেই করোনা নিয়ে নিশানা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।