কেন্দ্রের সঙ্গে সংঘাতের নীতিই বজায় রাখলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রধানমন্ত্র নরেন্দ্র মোদী চিঠি দিয়ে আমন্ত্রণ জানালেও বুধবার দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর ডাকা সর্বদলীয় বৈঠকে যাচ্ছেন না তৃণমূলনেত্রী। চিঠি দিয়ে সেকথা দিল্লিকে জানিয়েও দিয়েছেন মমতা। 

দেশের সবকটি স্বীকৃত রাজনৈতিক দলের প্রধানদের নিয়ে দিল্লিতে বুধবার সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মূলত 'এক দেশ, এক নির্বাচন' ব্যবস্থা চালু করা নিয়ে সব দলের মতামত শুনতেই এই বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী। 

কিন্তু অধিকাংশ বিরোধী দলের মতোই তৃণমূলও লোকসভা এবং বিধানসভা নির্বাচন আলাদা আলাদা সময়ে করার পক্ষে। কেন্দ্রীয় সংসদীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশীকে লেখা চিঠিতে তৃণমূলনেত্রী জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বুধবারের বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারবেন না। চিঠিতে তিনি লিখেছেন, আরও সময় নিয়ে এই বৈঠক ডাকা উচিত ছিল। সেক্ষেত্রে সব দলই আরও প্রস্তুতি নিয়ে বৈঠকে যেতে পারত বলেই মত দিয়েছেন তিনি। 

গত ১৫ জুন দিল্লিতে নীতি আয়োগের বৈঠকেও সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের ডেকে পাঠিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই বৈঠকেও বয়কট করেছিলেন মমতা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যাবেন বলেও শেষ পর্যন্ত তা বয়কট করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।