দ্বৈপায়ন লালা, মালদহ- স্বাধীনতা দীবসের চাঞ্চল্যকর ছবি প্রকাশ্যে এল মালদহে। জাতীয় পতাকার অনুকরণে কেক বানিয়ে নিজেদের উদরপূর্তি করতে দেখা গেল তৃণমূল নেতাদের।কার্যত উল্লাস করে সেই কেটে  জনসমক্ষে খেতে দেখা যায় তাঁদের। সেই ঘটনার ছবি প্রকাশ্য়ে আসতেই জেলা জুড়ে সমালোচনা ঝড় উঠেছে। জাতীয় পতাকা অবমাননার অভিযোগে কাঠগড়ায় জেলা তৃণমূলের শীর্ষ নেতারা। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে রতুয়ায়। বিষয়টি তীব্র নিন্দার ঝড় তুলেছে বিজেপি শিবির।

জানাগেছে, ঘটনাটি ঘটেছে ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবসে। চারিদিকে যখন জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে দেশের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতাকে সম্মান জানায় দেশবাসী। ওই দিন জাতীয় পতাকার অনুকরণে কেক বানিয়ে সমারোহে জন্মদিন পালন করলেন রতুয়ার তৃণমূল নেত্রী। সেখানে দেখা যাচ্ছে, স্থানীয় তৃণমূল নেত্রী সাহেনাস কাদরির জন্মদিনে জনসমক্ষে কেক কাটছেন তৃণমূলের সংগঠন জয়হিন্দ বাহিনীর জেলা সভাপতি কৃষ্ণ দাস। উপস্থিত ছিলেন রতুয়ার দাপুটে তৃণমূল নেতা শেখ ইয়াসিন সহ অন্যান্য শীর্ষ নেতৃত্ব। হাততালি দিতে দেখা অন্যান্য অনুগামীদেরও।

এই চাঞ্চল্যকর ছবি প্রকাশ্যে আসতেই সমালোচনার ঝড় ওঠে। এবিষয়ে তৃণমূল নেতা বাবলা সরকার বলেন, ''এই ঘটনা যাঁরা করেছে, তাঁরা খুব অন্যায় করেছে''।

ঘটনার তীব্র নিন্দা করে সমালোচনায় সরব হয়েছে মালদহ বিজেপি নেতৃত্ব। জেলা বিজেপির সহ সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, ''জাতীয় পতাকার অবমাননা করে, এই ধরনের কুরুচিকর অনুষ্ঠান কখনোই মেনে নেওয়া যায় না, উপস্থিত থাকা সবাইকে জেলে ঢোকানে উচিত ''।

যদিও, এবিষয়ে ওই দিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা তৃণমূল নেতা কৃষ্ণ দাস, শেখ ইয়াসিন, শাহেনাজ কাদরির কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। এই ধরনের গুরুতর অভিযোগের তীব্র সমালোচনা করেছেন বিশিষ্টজনেরাও।