এবার থেকে রাজ্যপালের নিরাপত্তায় আর রাজ্য পুলিস থাকবে না। নতুন করে রাজ্যপালের নিরাপত্তায় থাকবে কেন্দ্রীয় বাহিনী। সূত্রে খবর, এখন থেকে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের নিরাপত্তায় থাকবেন ৪ থেকে ৫ জন আধাসেনার জওয়ান। 

অনেক দিন ধরেই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে। অবশেষে সেই প্রস্তাবে সায় দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। সূত্রের খবর,নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে রাজ্যপালের। বর্তমানে জেড ক্যাটেগরির নিরাপত্তা পান রাজ্যপাল। সেখানে তাঁর জন্য জেড প্লাস ক্যাটেগরির নিরাপত্তার দাবি জানানো হয়েছিল। রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের নিরাপত্তার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবি জানিয়েছিল বঙ্গ বিজেপি। রাজ্য বিজেপির সেই দাবি মেনে নিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

রাজ্য রাজনীতির সাম্প্রতিক  অতীত বলছে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বাবুল সুপ্রিয়কে উদ্ধার করতে গিয়ে নিজেই আটকে পড়ছিলেন জগদীপ ধনখড়। কেন্দ্রীয় বন প্রতিমন্ত্রীকে গাড়িতে বসানোয় রাজ্যপালের গাড়িতেই চাপড় মারে উত্তেজিত ছাত্ররা। দীর্ঘক্ষণ মন্ত্রীকে নিয়ে গাড়িতেই বসে থাকতে হয় রাজ্যপালকে। এরপর থেকেই রাজ্যপালের নিরাপত্তা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করে রাজ্য বিজেপি।  তবে শুধু এই ঘটনাই নয়। অতীতের বেশকিছু ঘটনাও রাজ্য়পালের নিরাপত্তা বাড়ানোর প্রয়োজন বোধ করে বিজেপি। 

সম্প্রতি দুর্গা কার্নিভাল নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে জড়ান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। দুর্গাপুজোর কার্নিভালে তাঁকে অপমান করার অভিযোগ তোলেন রাজ্যের প্রসাসনিক প্রধান। মুখে মমতার নাম না করলেও তাঁর নিশানায় যে মুখ্য়মন্ত্রী, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। গত ১১ অক্টোবর রেড রোডে দুর্গা পুজোর কার্নিভালে সস্ত্রীক উপস্থিত ছিলেন রাজ্য়পাল। ধনখড়ের অভিযোগ,তাঁকে রেড রোডে আমন্ত্রণ জানিয়ে ৪ঘণ্টা ব্ল্যাক আউট করে রাখা হয়। সংবাদ মাধ্য়মে অনুষ্ঠানের  যে ভিডিয়ো দেখানো হয়েছে তাতেও বাদ রাখা হয়েছে ধনখড়কে। যেহেতু রাজ্য সরকারের তরফে সংবাদ মাধ্যমে অনুষ্ঠানের ফিড দেওয়া হয়েছে সেখানে রাজ্যপালের ভিডিয়ো দেওয়াই হয়নি।
ধনখড়ের অভিযোগ, কার্নিভালে আমন্ত্রণ করে ইচ্ছাকৃতভাবে অপমান করা হয়েছে তাঁকে। কেন তাঁকে এভাবে অপমান করা হল তা জানতে সাংবাদিকদের প্রশ্ন তুলতে বলেছেন রাজ্যপাল।