ফের এনআরসি আতঙ্কে মৃত্যু রাজ্যে। এবারের ঘটনা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার গড়বেতা থানার জামবনি এলাকার। মৃতের নাম শরফুদ্দিন মির্জা।

মৃতের পরিবারে অভিযোগ, দিন কয়েক ধরে নিজের আধার কার্ড, ভোটার কার্ড ও বাড়ির দলিল নিয়ে ছোটাছুটি করছিলেন শরফুদ্দিন। শুক্রবার দুপুরে তিনি গড়বেতা তিন নম্বর বিডিও অফিসে যান কাগজপত্র ঠিক করার জন্য। বাড়ির ফেরার পরেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যু হয় তাঁর।

দেখুন ভিডিও : আসছে ক্রিসমাস, সেজে উঠছে ভুবনেশ্বর

শরফুদ্দিন মির্জার মৃত্যু নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। তৃণমূলের অভিযোগ নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাসের পরেই এনআরসি আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা বাংলায়। বলা হচ্ছে ১৯৭১ সালের দলিল না থাকলে এনআরসি থেকে নাম বাদ পড়তে পারে। সেই আতঙ্কেই দিন তিনেক হল সরকারি দফতরে ছুটছিলেন শরফুদ্দিন। আর এতেই অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। 

দেখুন ভিডিও: নাগরিকত্ব বিল নিয়ে উত্তাল দেশ, এর মাঝেই ভারতীয় নাগরিকত্ব পেলেন এক পাকিস্তানি

অন্যদিকে বিজেপির পাল্টা দাবি, বয়সজনিত কারণেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। এর সাথে এনআরসির কোনও সম্পর্ক নেই। শরফুদ্দিনের মৃত্যু নিয়ে তৃণমূল জগন্য রাজনীতি করছে বলে অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের। 

এনআরসি এরাজ্যে লাগু হবে না। আশ্বাস দিয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে পথেও নেমেছেন মমতা। কিন্তু সাধারণ মানুষের আতঙ্ক কাটছে না। শুক্রবারও এনআরসি আতঙ্কে পূর্ব বর্ধমানে ২ জনের মৃত্যর খবর পাওয়া গেছে। আধার কার্ড ও ভোটার কার্ড সংশোধনের চেষ্টা চালাচ্ছিলেন তাঁরা। পরিজনদের অভিযোগ, মানসিক চাপে হৃদরোগে আক্রান্ত হন দুই বৃদ্ধ।