টাটা ইন্ডিকা ও লরির মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃত্যু হলো এক পুলিশ অফিসার ও এক  সিভিক ভলেন্টিয়ারের । মঙ্গলবার গভীর রাতে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর থানার কানকি এলাকার ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে। 

নিহত পুলিশ অফিসারের নাম সফিকুল ইসলাম, তিনি ইসলামপুর থানায় কর্মরত ছিলেন। এছাড়াও দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে কামরুল হক নামে এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের।  সিভিক ভলেন্টিয়ার হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি তিনি গাড়ির চালক হিসেবেও কাজ করতেন।  মৃতদেহ দু' টি ময়নাতদন্তের জন্য ইসলামপুর পুলিশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘাতক লরিটিকে আটক করা গেলেও চালক ও খালাসি পলাতক। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গোয়ালপোখর থানার পুলিশ। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার  রায়গঞ্জে একটি সরকারি কাজে একটি ইন্ডিকা গাড়ি নিয়ে এসেছিলেন ইসলামপুর থানায় কর্মরত এএসআই মহম্মদ সফিকুল। সিভিক ভলেন্টিয়ার কামরুল হক গাড়িটি চালাচ্ছিলেন। রাতে রায়গঞ্জের কাজ শেষ করে ইসলামপুর ফেরার পথে কানকি এলাকায় ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের উপরে উল্টো দিক থেকে আসা একটি লরির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় ওই ইন্ডিকা গাড়িটির। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় চালক এবং সিভিক ভলেন্টিয়ার কামরুল হকের। কানকি ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ অফিসার সফিকুলকে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসকেরা তাঁকেও মৃত বলে ঘোষণা করেন। 

নতুন বছরের শুরুতেই এই ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে ইসলামপুর থানা ও জেলা পুলিশ মহলে। খবর পেয়েই  ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে ছুটে আসেন রাজ্যের শ্রম দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী তথা গোয়ালপোখরের বিধায়ক গোলাম রব্বানি। মৃত দুই পুলিশকর্মীর পরিবারের পাশে রাজ্য সরকার থাকবে বলে আশ্বাস দেন তিনি।