প্রতিবারের মত চলতি বছরেও বিজয়ায় দূষণ আটকাতে তৎপর প্রশাসন। ইতিমধ্যেই তরি করা হয়েছে নির্দিষ্ট গাইডলাইন। জলের মধ্যে যাতে আবর্জনা পড়ে তা দূষণ সৃষ্টি না করে, তার জন্যই এবার সিন্থেটিক লাইনার রাখার পরিকল্পনা। এই সিন্থেটিক লাইনার দিয়েই নিউটাউন চত্বরে বিসর্জন করানো হয়। যাতে জলের তলায় না প্লাস্টিক জাতীয় জিনিস পৌঁচ্ছে যায়। ও সহজেই জল পরিষ্কার রাখা সম্ভবপর হয়। 

তিন দফার এবার জল পরীক্ষা হওয়ার কথাও জানা গিয়েছে। জলে দুষণের মাত্রা কোন পর্যায় ঠিক কতটা তা ক্ষতিয়ে দেখা হবে। লেক টাউন এবং দমদম পার্কের দুটি পুকুরে ইতিমধ্যেই সিন্থেটিক লাইনার লাগানোর কথা ভাবা হয়েছে। পাশাপাশি করোনার জন্য রয়েছে বিসর্জন নিয়ে একাধিক নির্দেশিকা তাও মানতে হবে। আর সেই জন্যই চলতি বছর থাকছে না কোনও পরিবেশ বান্ধব পুজোর পুরষ্কার। তিন দফার একটি গাইডলাইনে বিস্তারিত সবটাই উল্লেখ রয়েছে। 

ন্যাশনাল মিশন ফর ক্লিন গঙ্গা-র এই নির্দেশিকা মানতে হবে সকলকেই। সেই মত সকলকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বিস্তারিত তথ্য। পাশাপাশি নবমী পর্যন্ত খোলা থাকবে কন্ট্রোল রুম। সেখানেও যোগাযোগ করা যেতে পারে। যোগাযোগেন নম্বর ১৮০০-৩৪৫-৩৩৯০। তবে বির্জনে এবার থাকছে না কোনও শোভাযাত্রা। তাই আগের থেকে যে এবার দুষণের মাত্রা কমবে তা খানিক আঁচ করা যায়, কারণ এবার আয়োজনে বেশ খানিকটা রাশ টেনেছে অনেকে।