সরকারি প্রকল্প বাড়ি পাওয়ার আশায় স্থানীয়  তৃণমূল নেতাকে কেউ পাঁচ হাজার, কেউ দশ হাজার করে ঘুষ দিয়েছিলেন। কিন্তু তার পরও বাড়ি না পেয়ে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে বিডিও- র কাছে অভিযোগ জানালেন প্রতারিতরা। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের মুরারই ২ নম্বর ব্লকের নন্দীগ্রাম অঞ্চলের বিপ্রনন্দীগ্রামে।  

অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা অবশ্য টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন। ঘটনার তদন্তের দাবি জানিয়েছে বিজেপি। তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন বিডিও। অভিযোগ, বিপ্রনন্দীগ্রামের ১৭ জন বাসিন্দার কাছ থেকে বাড়ি নির্মাণের নামে পাঁচ থেকে দশ হাজার টাকা করে ঘুষ নিয়েছিলেন গ্রামের বাসিন্দা প্রাক্তন উপপ্রধানের স্বামী পিন্টু পাল। কয়েকজন বাড়ি পেলেও অধিকাংশ আবেদনকারীই বাড়ি না পেয়ে বুধবার বিডিও- র দ্বারস্থ হন।  

টিঙ্কু রবিদাস, পাঁচকড়ি রবিদাস, বৈজয়ন্তী ফুলমালি, অলকী রবিদাসদের মতো গ্রামবাসীদের অভিযোগ, বাড়ি দেওয়ার নামে টাকা নিলেও বাড়ি দেননি তৃণমূল নেতা পিন্টু পাল। তাঁদের অভিযোগ, বাড়ির কথা বলতে গেলেই নানা অছিলায় তাঁদের দিনের পর দিন ঘোরাচ্ছেন অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা।  এমন কী, মারধরেরও হুমকি দিচ্ছেন তিনি। 

অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পিন্টু পাল বলেন, 'অভিযোগকারীরা মিথ্যে কথা বলছেন। আমি দলের কোনও পদে নেই। পঞ্চায়েত সদস্যও নই। তাহলে আমাকে কেন ওঁরা টাকা দেবেন? তাছাড়া ওঁরা যদি ঘুষ নেওয়ার কোনএ প্রমাণ দিতে পারেন তাহলে যে শাস্তি দেবে তা মাথা পেতে নেব। আমায় চক্রান্ত করে ফাঁসানো হচ্ছে। কারণ অভিযোগকারীরা সবাই বিজেপি করেন।'

পঞ্চায়েত প্রধান নাজরিন সুলতানা বলেন, 'আমাদের কাছে কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি। অভিযোগ জমা হলে দলের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেব।'  বিজেপি নেতা মানিক শেখ বলেন, 'ওই তৃণমূল নেতা বাড়ি করে দেবে বলে বহু মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। আমরা তদন্তের দাবি জানিয়েছি।' বিডিও অমিতাভ বিশ্বাস জানিয়েছেন, গ্রামবাসীদের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে।