লোকসভা নির্বাচনে আশানুরূপ ফল হয়নি। ২থেকে তৃণমূলের আসন কমিয়ে ১৮ আসন পেয়েছে বিজেপি। ২০২১ সালের আগে তাই তিন বিধানসভা উপনির্বাচনই লক্ষ্য় তৃণমূলের। পাশাপাশি নিজেদের প্রতাপ বজায় রাখতে চাইবে বিজেপি। কোন চিহ্ণে ভোট দেয় রাজ্যের মানুষ,আজ তার অগ্নিপরীক্ষা। কালিয়াগঞ্জ, করিমপুর, খড়গপুর সদরে আজ বিধানসভা উপনির্বাচন।

কালিয়াগঞ্জ: বাম  নয় এখানে বরাবরই রাজত্ব করেছে কংগ্রেস। বাম শাসনকালেও বেশ কয়েকবার বামফ্রন্ট জিতলেও তৃণমূল বা বিজেপি কোনও দলই কালিয়াগঞ্জে জিততে পারেনি। এবার এখানে তৃণমূলের প্রার্থী তপন দেব সিংহ। তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপির  প্রার্থী কমলচন্দ্র সরকার।  অন্যদিকে, প্রয়াত বিধায়ক প্রমথ রায়ের মেয়ে ধীতশ্রী রায়কে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের এই প্রার্থীকে সমর্থন করেছে বামেরা। 

করিমপুর: রাজ্য রাজনীতির ইতিহাস বলছে, বামেদের শক্ত ঘাঁটি বলেই পরিচিত  ছিল করিমপুর। ২০১৬ সালে প্রথমবার এই কেন্দ্রে জয়ী হন তৃণমূল প্রার্থী মহুয়া মৈত্র। এখানে শাসক দলের প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়। অন্যদিকে,বিজেপির টেলিভিশনে অন্যতম পরিচিত মুখ রাজ্য বিজেপির  সহ-সভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদারকে প্রার্থী করেছে বিজেপি। সিপিএম সেখানে আইনজীবী গোলাম রাব্বিকে প্রার্থী দাঁড় করিয়েছে।

খড়গপুর সদর:  ২০১৬ সালে এই কেন্দ্রে বিজেপিকে জিতিয়ে দেন দিলীপ ঘোষ। এবার দিল্লিতে সাংসদ হয়ে গিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। সে জায়গায় তাঁর বিকল্প হিসাবে বিজেপি প্রার্থী করেছে প্রেমচাঁদ ঝা-কে। অন্য দিকে খড়গপুর পুরসভার প্রধান প্রদীপ সরকারকে প্রার্থী করেছে শাসক দল। পরিসংখ্য়ান বলছে লোকসভায় এই কেন্দ্রে ভালো ফল করলেও বিজেপির গোষ্ঠীকোন্দল এখানে সবারই জানা। বিজেপি যখন গোষ্ঠী কোন্দলে জর্জরিত সেখানে স্থানীয়  মাস্টারমশাই চিত্তরঞ্জন মণ্ডলকে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস।