এক গৃহবধূকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠলো দক্ষিণ ২৪ পরগণার কুলতলি থানার গোপালগঞ্জ গ্রামে। মৃতার নাম তুহিনা মোল্লা(২০) ওরফে মামনি। রবিবার সকালে শ্বশুর বাড়ি থেকেই উদ্ধার হয় তুহিনার মৃতদেহ। এই ঘটনায় অভিযোগের আঙুল উঠেছে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে কুলতলি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন মৃতের বাপের বাড়ির সদস্যরা। অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, বছর দুয়েক আগে কুলতলির কুন্দখালি গ্রামের বাসিন্দা রাজ্জাক মোল্লার মেয়ে তুহিনার সাথে দেখাশুনা করে বিয়ে হয় গোপালগঞ্জ গ্রামের বারেক সর্দারের ছেলে সাগির হোসেনের সাথে। বিয়েতে তুহিনার বাপের বাড়ির তরফ থেকে যথেষ্ট পন সামগ্রী ও দেওয়া হয়েছিল। বেশ কিছুদিন সব ঠিকঠাক থাকলেও কিছুদিন ধরে তুহিনার উপর অত্যাচার চলতে থাকে। 

তুহিনার বাপের বাড়ির সদস্যদের অভিযোগ গায়ের রঙ কালো হওয়ায় তুহিনার শাশুড়ি, ননদ সকলেই তাঁর উপর অত্যাচার করত। ওরাই তুহিনাকে পিটিয়ে মেরে দিয়েছে। কুলতলি থানার পুলিশ দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কেউ আটক বা গ্রেফতার হয়নি। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্তরা। অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে কুলতলি থানার পুলিশ।