বিএড পরীক্ষা দিতে এসে পুত্রসন্তানের জন্ম দিলেন এক গৃহবধূ। আদর করে শিক্ষাকর্মীরা সদ্যোজাতের নাম রাখলেন বিএড মাহাতো। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ার রাধানগর এলাকায়। আপাতত মা এবং সন্তান দু' জনেই সুস্থ আছে।

জানা গিয়েছে, বিএড পরীক্ষার্থী ওই গৃহবধূর নাম বেলারানি মাহাতো। আদতে তিনি পুরুলিয়া হুড়া এলাকার বাসিন্দা। বাঁকুড়ার পিয়ারডোবা কনিষ্ক কলেজ অফ এডুকেশনের বিএড-এর ছাত্রী তিবি। মঙ্গলবার থেকে ছিল চতুর্থ সেমিস্টারের পরীক্ষা। বেলারানির পরীক্ষার সিট পড়েছিল ভড়া ধনঞ্জয় দাস কাঠিয়াবাবা মহাবিদ্যালয়ে। অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেই পরীক্ষা দিতে চলে আসেন তিনি। যেহেতু চার দিন ধরে পরীক্ষা চলবে, তাই সোমবার বিকেলেই ভড়া কাঠিয়াবাবার আশ্রমে একটি ঘর ভাড়া নিয়ে স্বামীর সঙ্গে থাকছিলেন ওই গৃহবধূ। 

কিন্তু পরীক্ষায় বসার আগে মঙ্গলবার সকাল থেকেই ওই গৃহবধূর প্রসব যন্ত্রণা শুরু হয়। আশ্রম কর্তৃপক্ষ তাঁকে স্থানীয় রাধানগর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করে। কলেজ কর্তৃপক্ষ অবশ্য বিষয়টি জানতে পেরে হাসপাতালেই তাঁর পরীক্ষার ব্যবস্থা করে দেন। কিন্তু পরীক্ষার সময়ই তাঁকে লেবার রুমে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই একটি ফুটফুটে পুত্রসন্তানের জন্ম দেন ওই গৃহবধূ। ফলে, প্রথম পরীক্ষাটি আর দেওয়া হয়নি তাঁর। 

বেলারানি অবশ্য জানিয়েছেন, হাসপাতালে থেকে পরের তিনটি পরীক্ষা দিতে চান তিনি। ওই গৃহবধূ সন্তানের জন্ম দেওয়ায় কলেজ কর্তৃপক্ষও খুশি। হাসপাতালে হোক বা তাঁর পরীক্ষা কেন্দ্রে, বেলারানির সুবিধে মতো তাঁর পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তারা। আর এসবের মধ্যেই বেলারানির ছেলের নামও ঠিক করে ফেলেছেন কলেজের শিক্ষাকর্মীরা। যেহেতু বেলারানি বিএড পরীক্ষা দিতে এসেই ছেলের জন্ম দিয়েছেন, তাই আদর করে সদ্যোজাতর নাম রাখা হয়েছে বিএড মাহাতো!