সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেক নেতিবাচক দিক রয়েছে। তবে সামাজিক মাধ্যমের কারণে মানবিকতার স্পর্শও পেয়েছে অনেকে। দিন কয়েক আগেই বাংলাদেশে, সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে রিক্সা হারানো এক রিক্সাওয়ালা সাহায্য পেয়েছিলেন। এবার ভারতে এক ছোট্ট শিশু সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে পড়াশোনার জন্য স্কলরশিপ অর্জন করতে চলেছে। লাদাখের ওই শিশুটিকে দেখে এতটাই প্রভাবিত হয়েছেন বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ রাজীব চন্দ্রশেখর, যে তিনিই শিশুটির পড়াশোনার দায়িত্ব নিতে চেয়েছেন।

ইন্দো-তিব্বত সীমান্ত পুলিশ বা আইটিবিপি রবিবার টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিল। তাতে চুশুলের রাস্তা ধরে সীমান্ত টহলদার বাহিনীর একটি দলকে যেতে দেখা গিয়েছে। রাস্তার পাশে একটি বছর পাঁচেকের ছোট্ট ছেলে দাঁড়িয়ে ছিল। আইটিবি জানিয়েছেন তার নাম নামগিয়াল। সেনাবাহিনীর এক অফিসার ওই বালকের কাছে এসে সাবধান-বিশ্রাম এবং স্যালুটের কমান্ড দেন। ছোট্ট ছেলেটিকে দেখা যায় একেবারে প্রায় সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষিত ক্যাডেটের মতোই শরীরের সব পেশি শক্ত করে কঠিন মুখে স্যালুট করতে। জানা গিয়েছে ঘটনাটি ৮ অক্টোবর সকালের।

লেখিকা মেঘনা গিরিশ-ও ভিডিওটি শেয়ার করেন। তাঁর টুইটটি চোখে পড়ে রাজ্যসভার সাংসদ তথা বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র রাজীব চন্দ্রশেখর-এর। নামগিয়াল-এর স্যালুট করার করার ধরণে এতটাই মুগ্ধ হন, যে তিনি নামগিয়ালকে পড়াশোনার জন্য স্কলারশিপ বা বৃত্তি দেওয়ার প্রস্তাব দেন। টুইট বার্তায় তিনি আইটিবিপি-কে অনুরোধ করেছেন নামগিয়াল-এর বাবা-মা-এর বিশদ তথ্য যাতে তাঁরা সাংসদকে পাঠান। তাহলে তিনি নামগিয়ালের বাবা-মায়ের কাছে প্রয়োজনীয় টাকা পাঠাতে পারবেন। তবে নেটিজেনরা কেউ কেউ বিজেপি সাংসদকে পরামর্শ দিয়েছেন নামগিয়ালকে কোনও সেনা ইন্সস্টিটিউটে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার জন্য।