জ্যোতিষীগণ মনে করেন মানুষ সচেতন কর্মের সাহায্যে অথবা ঈশ্বরের আশীর্বাদে অথবা এই দুইয়ের মিশ্রিতফলে ভাগ্য অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ এবং পরিবর্তন করতে পারে। এই নিশ্চয়তার তারতম্যের কারণে অনেক বিজ্ঞানী জ্যোতিষশাস্ত্রকে মান্যতা দেন না। একদিকে যেমন বিখ্যাত বিজ্ঞানী ইয়োহানেস কেপলার একই সঙ্গে জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবং জ্যোতিষী ছিলেন, আবার অন্যদিকে বিজ্ঞানীদের অনেকে জ্যোতিষশাস্ত্রকে ভ্রান্ত প্রতিপন্ন করতে চেয়েছেন। যেমন, ১৯৭৫ সালের সেপ্টেম্বরে দ্য হিউম্যানিস্ট পত্রিকায় অনেক বিজ্ঞানী আনুষ্ঠানিকভাবে জ্যোতিষশাস্ত্রের বিরুদ্ধে প্রচার করেছেন। এছাড়া বিখ্যাত বিজ্ঞান কাহিনী লেখক কার্ল সেগান তার একটি প্রামাণ্য চিত্রে এ নিয়ে আলোচনা করেছেন। তা সত্ত্বেও জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রতি বহু মানুষের বিশ্বাস এখনও অটুট আছে।

আরও পড়ুন- নভেম্বর মাসে কোন কোন রাশির হবে আর্থিক উন্নতি, দেখে নিন রাশিফল

জ্যোতিষ্ক বিষয়ক তথ্য, সূত্রাবলী ও ব্যবহারিক প্রয়োগের সামগ্রিক জ্ঞান জ্যোতিষশাস্ত্র নামে পরিচিত। এই শাস্ত্রের উৎপত্তিকালে জ্যোতিষশাস্ত্র এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান এক এবং অভিন্ন ছিল। পরবর্তিকালে জ্যোতিষশাস্ত্র জ্যোতিষ্কগুলির গতি এবং অবস্থানের ভিত্তিতে, প্রাকৃতিক এবং শারীরিক লক্ষণ অথবা দুয়ের সমন্বয়ে ব্যক্তি, সমষ্টি বা দেশের ভবিষ্যৎ নিরুপণের প্রায়োগিক দিকটি নিয়ে অভিজ্ঞতাভিত্তিক জ্ঞানের সংগ্রহ হিসেবে বিস্তার লাভ করে। সেই জ্যোতিষশাস্ত্রের মতেই, প্রতিটি মানুষের ব্যক্তিত্ব বা তার চরিত্র নির্ভর করে তার নির্দিষ্ট জন্ম সময় এবং দিনের উপর। তাই কোনও ব্যক্তির স্বভাব বা চরিত্র সম্বন্ধে জানতে তার জন্ম ক্ষণ জানলেই প্রাথমিক ধারণা পাওয়া যায়। জেনে নেওয়া যাক শনিবারে জন্ম জাতক-জাতিকাদের স্বভাবে কি কি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। 

আরও পড়ুন- শনিবার সামান্য এই উপাদান দিয়েই কাটিয়ে উঠুন শনির দোষ, ফেরান অর্থ ভাগ্য


এই দিনে জন্মগ্রহণ করা মানুষরা শান্ত স্বভাবের তবে রেগে গেলে এদের ক্রোধ সামলানো খুব সমস্যার। চিৎকার চেঁচামেচি করে ফেলেন।

এদের আর্থিক দিক মোটামুটি থাকে। 

এরা অভিমানী, আত্মকেন্দ্রিক ও কাম প্রবণ হয়ে থাকেন। 

এরা সহজে নিজের মনের কথা অপর কাউকে জানায় না।

আরও পড়ুন- কেমন কাটবে সপ্তাহের শেষদিন, দেখে নিন আজকের রাশিফল

এদের বন্ধু সংখ্যা খুব কম। মনের মত মানুষ ছাড়া এরা সহজে মেলামেশা করা পছন্দ করেন না।

তবে এরা খুব পরপোকারী। অন্যের বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়ে সাহায্য করার জন্য।

এরা অত্যন্ত পরিশ্রমী, কুড়েমী স্বভাব এদের মধ্যে নেই বললেই চলে।

একা থাকতে পছন্দ করেন, তবে সকলের মধ্যে এমনটা লক্ষ্য করা যায় না।

খেতে ভালোবাসেন তবে খুব সংযমী।

উশৃঙ্খল জীবন যাপন এদের একদম পছন্দ নয়, নিয়ম মেনে চললেই বেশি পছন্দ করেন।