পৌষ বাংলা সনের নবম মাস। পৌষ মানেই শীতের আমেজ। হিমেল শীতল বাতাসের স্পর্শ শীতের আমেজ বহে আনে এই মাস। পৌষ মাসকে লক্ষ্মী মাস বলেও মনে করা হয়। এই লক্ষ্মী মাস বা পৌষ মাসের অমবস্য়া ব্রত পালন করলে মেলে অনেক সুফল। পরিবারের শান্তি, সুস্থতা, সমৃদ্ধি ও সুখ বজায় রাখতে অনেকেই এই মাসের অমাবস্যায় ধন লক্ষ্মীর আরাধনা করে থাকেন। তাই আপনার জীবনের যাবতীয় সমস্যা এড়াতে এই পূণ্য মাসের অমাবস্যায় আরাধনা করুন ধনলক্ষ্মীর আর মুক্তি পান নানান সমস্যা থেকে।

আরও পড়ুন- পৌষ মাসের শনিবার মেনে চলুন এই নিয়ম, কাটিয়ে উঠুন দারিদ্রতা ও খারাপ সময়ের যোগ

পৌষ অমাবস্যা স্বর্গীয় পূর্বপুরুষদের শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠানের জন্য একটি উপযোগী দিন। যদি কোনও কারণে স্বর্গীয় পূর্বপুরুষদের শ্রাদ্ধের কাজ করতে না পারেন, তবে নির্দ্ধিধায় পৌষ মাসের অমাবস্যা এই কাজ করতে পারেন। এতে  প্রায়শ্চিত্ত করে এবং  পূর্ব-পুরুষদের দ্বারা আশীর্বাদ লাভের উপযোগী দিন। আপনি যদি আপনার রাশিফলে স্পষ্টরূপে পিত্রুদোশের সমস্যায় ভুগে থাকেন তবে আপনি দুঃস্থদের জন্য খাদ্য ও বস্ত্র দান করার জন্য পৌষ অমাবস্যা দিনটি বেছে নিতে পারেন। এই দিনটিতে দুঃস্থদের জন্য পাদুকা এবং জামাকাপড়, শীতবস্ত্র দান করলে গ্রহরে মারাত্মক কুপ্রভাবক প্রতিকার করতে পারবেন। 

আরও পড়ুন- আগামী বছরে কেমন হবে মিথুন রাশির কর্মজীবন, জেনে নিন

পৌষ আমাবস্যায় অনেকেই বাড়িতে বিশেষ পুজোর আয়োজন করে থাকেন। এই পূণ্য মাসে এই পুজো বিশেষ ফল অর্জনে সহায়তা করে। এই বিশেষ তিথিতে মানসিক পুজো রোগমুক্তি এবং যাবতীয় স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা থেকে পুনরুদ্ধারে সহায়তা করে। অকাল মৃত্যু রোধ করতেও এই তিথিতে পুজোর বিধান দেন পুরোহিতেরা। এই সময়ে করা পুজো পরিবারে স্থিতিশীলতা এবং সমৃদ্ধি-সহ ব্যবসার প্রসার ঘটাতে সাহায্য করে। তাই এই তিথি-কে কাজে লাগিয়ে কাটিয়ে উঠুন সমস্ত বাধা-বিপত্তি।