"দীপাবলি" শব্দটির অর্থ "প্রদীপের সমষ্টি"। এই দিন হিন্দুরা ঘরে ঘরে ছোটো মাটির প্রদীপ জ্বালেন। এই প্রদীপ জ্বালানো অমঙ্গল বিতাড়নের প্রতীক। বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে সারা রাত প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখলে ঘরে লক্ষ্মী আসেন বলে উত্তর ভারতীয় হিন্দুরা বিশ্বাস করেন। বাংলার দীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়। এই উৎসব সাড়ম্বরে আলোর উৎসব হিসেবে পালিত হয়। ১৭৭৭ খ্রিষ্টাব্দে কাশীনাথ রচিত শ্যামাসপর্যাবিধিগ্রন্থে এই পুজোর সর্বপ্রথম উল্লেখ পাওয়া যায়। কথিত আছে, নদিয়ার রাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায় অষ্টাদশ শতকে তার সকল প্রজাকে শাস্তির ভীতি প্রদর্শন করে কালীপুজো করতে বাধ্য করেন। এই উৎসবের শুরুর দিন পালন করা হয় ধনতেরাস উৎসব। ধন মানে সম্পদ আর তেরাস কথার অর্থ হল ত্রয়োদশী। কার্তিক মাসের কৃষ্ণপক্ষের ১৩তম দিন পালন করা হয় ধনতেরাস।

আরও পড়ুন- দীপাবলির সময়ে এই জিনিসগুলি কখনোই ধার নেবেন না অন্যের থেকে

এ বছরে ২৫ অক্টোবর শুক্রবার পালিত হবে শুভ ধনতেরাস। স্কন্ধ পুরাণ মতে, যমরাজের জন্য এদিনে প্রদোষকালে প্রদীপ ও নৈবেদ্য উৎসর্গ করলে বাড়িতে অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। তবে চলুন জেনে নেওয়া যাক, কীভাবে এই শুভ তিথিতে বাড়িকে বিপদমুক্ত করতে পুজো করবেন যমরাজের।

আরও পড়ুন- ভূত চতুর্দশীতে কেন চোদ্দ শাক খেতে হয়, জেনে নিন এর আসল কারণ

মাটির প্রদীপ কিনে প্রথমে জল দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। এরপর প্রদীপে সলতে দুটি ক্রশ করে এমনভাবে রাখুন যাতে প্রদীপের বাইরে চারটি দিক দিয়ে প্রদীপটি জ্বালানো যায়। এবারে প্রদীপটি তিলের তেল দিয়ে ভরে দিন। এবারে প্রদীপের মধ্যে কিছুটা কালো তিল দিয়ে দিন।

এবার এই প্রদীপটির বাড়ির মূল দরজার সামনে মাটির তাল বা গমের ছোট্ট গাদা তৈরি করে তার উপরে দক্ষিণ মুখ করে বসিয়ে দিন। এরপর হাতে ফুল নিয়ে যম দেবকে স্মরণ করে অভিবাদন করুন। 'নম যমদেবায় নমঃ' মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে স্মরণ করুন।

আরও পড়ুন- ধনতেরাসে বাস্তুশাস্ত্র মেনে ব্যবহার করুন ক্রিস্টাল বল, কাটিয়ে উঠুন সন্তানকে নিয়ে সমস্যা

ধনতেরাসের দিন পদ্ধতিগতভাবে পুজো করলে এবং পদ্ধতিগতভাবে দীপদান করলে, সেই বাস্তু থেকে অকাল মৃত্যু ভয় কিছুটা হলেও কাটানো যায়।