প্রতিটি শাস্ত্রের মতো জ্যোতিষশাস্ত্রেরও কিছু একক আছে। জন্মরাশি সেই এককগুলির একটি।পৃথিবীকে কেন্দ্র করে চন্দ্রের আবর্তন পথকে ৩৬০ ডিগ্রি সমমানের একটি বৃত্ত আকারে এঁকে ১২ টি অংশে বিভক্ত করলে প্রায় ৩০ ডিগ্রী সমমানের যে বৃত্তচাপ পাওয়া যায় তার প্রত‌্যেকটিকে এক একটি রাশি বলা হয়।  জ্যোতিষশাস্ত্রের বৈধতা পরীক্ষা করা কঠিন হতে পারে কারণ জ্যোতিষবিদদের মধ্যে জ্যোতিষশাস্ত্র কী বা এটি কী ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারে এই ব্যাপারে কোনও ঐক্য নেই । অধিকাংশ পেশাদার জ্যোতিষীদের ভবিষ্যতের পূর্বাভাস দিতে বা ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব ও জীবনকে বর্ণনা করার জন্য অর্থ প্রদান করতে হয়, কিন্তু সর্বাধিক পঞ্জিকাগুলি কেবল অস্পষ্ট বিবৃতি প্রদান করে যা প্রায় যে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা যেতে পারে।

আরও পড়ুন- মাঘ মাস কেমন প্রভাব ফেলবে কর্কট রাশির উপর, দেখে নিন

এই জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, আপনার জীবনে ভালো বা খারাপ কিছু ঘটতে চললে তার আগাম আভাস নাকি পাওয়া যায় পিঁপড়ের থেকে। শাস্ত্র মতে, কালো পিঁপড়ে অত্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। তাই ঘরে কালো পিঁপড়ে দল বেঁধে ঘুরে বেড়াতে দেখলে বুঝতে হবে যে অর্থাগম হতে চলেছে। অন্যদিকে লাল পিঁপড়ের সারি দেখলে আর্থিক সংকটের মধ্যে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করেন জ্যোতিষশাস্ত্র। তাই ঘরে লাল পিঁপড়ে দেখলেই তা সরিয়ে দেওয়ার কথা বলা আছে জ্যোতিষশাস্ত্রে। কালো পিঁপড়ে শুভ হলেও খুব বেশি পরিমাণ তা যেন আপনার ঘরে বাসা না বাঁধে। তবে সেই ঘর বাসের অযোগ্য হয়ে উঠবে।

আরও পড়ুন- বুধবার সারাদিন কেমন কাটবে আপনার, এক নজরে দেখে নিন আজকের রাশিফল

জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, ঘরের উত্তর দিকে পিঁপড়ের সারি দেখা গেলে বুঝতে হবে জীবনে সুখের আগমন ঘটছে। ঘরের দক্ষিণ দিকে পিঁপড়ের সারি দেখা দিলে বুঝতে হবে আর্থিক উন্নতির লাভের যোগ রয়েছে। পূর্বদিকে পিঁপড়ের সারি দেখতে পেলে কোনও সুখবর পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করা হয়। পশ্চিম দিকে পিঁপড়ে দেখা দিলে বিদেশযাত্রার প্রবল সুযোগ রয়েছে বলে মনে করা হয়। একইভাবে চালের কৌটোর থেকে কালো পিঁপড়ে বেরিয়ে আসাকে ধনলাভের ইঙ্গিত হিসেবে মান্য করা হয়। আর গয়নার বাক্সে পিঁপড়ে দেখলে সম্পত্তি বৃদ্ধির ইঙ্গিত হিসেবে মান্য করা হয় জ্যোতিষশাস্ত্রে।