অনেক সংস্কৃতির মধ্যেই জ্যোতির্বিজ্ঞানের ঘটনাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ভারতীয়, চীনা ও মায়া সভ্যতার অধিবাসীগণ মহাকাশ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পার্থিব ঘটনাগুলির ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য এই বিষয়ের চর্চা এবং উন্নয়ন সাধন করেছিলেন। পশ্চিমে, জ্যোতিষশাস্ত্র প্রায়ই একজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের ব্যাখ্যা করার জন্য এবং তার জন্মের সময় সূর্য, চন্দ্র, এবং অন্যান্য জ্যোতিষ্কগুলির অবস্থানের উপর ভিত্তি করে তার জীবনের ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য ব্যবহৃত হত। জ্যোতিষশাস্ত্র অতি প্রাচীন এবং এটি বিভিন্ন সময়ে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন সভ্যতার মানবগোষ্ঠির দ্বারা চর্চিত, পরিবর্তিত ও পরিবর্ধিত হয়েছে। তাই কোন একটি বিশেষ সময়কে জ্যোতিষশাস্ত্রের সৃষ্টিকাল হিসেবে চিহ্নিত করা যুক্তিযুক্ত নয়।

আরও পড়ন- বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে চান, এই বিষয়ে কী জানাচ্ছে জ্যোতিষশাস্ত্র

জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, মানুষের স্বাস্থ্য ও মনের উপর রঙের প্রভাব যথেষ্ট। ধর্মীয় বিভিন্ন কার্যেও রঙের বিভিন্ন প্রভাব রয়েছে। সূর্যের রশ্মির সাতটি রং-এর সংমিশ্রণ। মানব জীবনে নানান প্রভাব সৃষ্টি করে এই সাত রং। পছন্দের রং দেখে যে কোনও মানুষের সম্পর্কেই অনেক আজানা কথা বুঝে যাওয়া সম্ভব। চরিত্র মানুষের এক অমূল্য সম্পদ। যিনি চরিত্রবান তিনি সমাজে যে কোনও বিরাট সম্পদশালীর চেয়ে বেশি সম্মান পেয়ে থাকেন। চরিত্র মানুষকে দান করে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য। রামধনুর রশ্মিগুলি আমাদের শরীর ও মনকে প্রভাবিত করে। রামধনুর লাল রঙ সৌভাগ্য ও মাঙ্গলিক কাজের প্রতীক। লাল রঙ তেজস্বীতা, শৌর্য বীর্য ও বলবক্তাকে ব্যক্ত করে। তাই লাল রঙ সমৃদ্ধির প্রকাশ। গেরুয়া রঙ আধ্যাত্মিক ভাবের প্রকাশ। ঠিক একইভাবে পছন্দের রঙ অনুযায়ী জেনে নিন তার ব্যক্তিত্ব

আরও পড়ুন- সন্তানকে শুধু শাসন নয় বাড়িয়ে দিন সহযোগিতার হাত, জ্যোতিষ মতে মেনে চলুন এই নিয়মগুলি

বেগুনি রং- যাঁর বেগুনি রং পছন্দ তিনি সর্বদা হাসিখুসি ও অত্যন্ত মিশুখে প্রকৃতির হয়ে থাকেন। 

নীল রং- যাঁর বেগুনি রং পছন্দ তাঁরা কঠোর পরিশ্রমী ও নতুন কাজের প্রতি উদ্যোগী হন। তবে এদের অনেকেই স্বার্থপর স্বভাবের মনে করলেও এরা নিজেদের জীবনে উদ্দেশ্য সম্পর্কে সচেতন।

আকাশী রং- যাঁরা আকাশী রং পছন্দ করেন তাঁরা অত্যন্ত রাগী প্রকৃতির ব্যক্তিত্ব হন।

সবুজ রং- যাঁরা সবুজ রং পছন্দ করেন তাঁরা অপরের উপর প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়। 

হলুদ রং- যাঁরা হলুদ রং পছন্দ করেন তাঁদের অন্যদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ হওয়ার প্রবণতা বেশি।

কমলা রং- যাঁরা কমলা রং পছন্দ করেন তাঁরা অত্যন্ত ত্যাগী, জ্ঞানপিপাসু ও গাম্ভীর্যপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হন।

লাল রং- যাঁরা লাল রং পছন্দ করেন তাঁরা অত্যন্ত সাহসী, ভোগী, অনুভূতিপ্রবণ ও স্পষ্টভাষী হয়ে থাকেন।

কালো রং- যাঁরা কালো পছন্দ করেন তাঁরা অত্যন্ত অপরিণামদর্শী সেই সঙ্গে আইনি কাজকর্ম থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন।

বাদামী রং- যাঁরা বাদামী রং পছন্ত করেন তাঁরা বিপরীত রঙের প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল হয়ে থাকেন।