জ্যোতিষশাস্ত্র এমন একটি বিজ্ঞান যা নভোমণ্ডলে বিভিন্ন জ্যোতিষ্ক অর্থাৎ গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান বিবেচনা করে মানুষের ভাগ্যগণনা তথা ভাগ্য নিরূপণ করে। জন্মসময়, তারিখ এবং জন্মস্থানের ভিত্তিতে, জন্মকালে মহাকাশে গ্রহের অবস্থান নিরুপণ করে অথবা প্রশ্নের সময় গ্রহাদির অবস্থান নির্ণয় করে, অথবা হস্তরেখাবিচার, শরীরের চিহ্নবিচার ইত্যাদি বিভিন্ন পদ্ধতির ব্যবহারে প্রশ্নকর্তার ভবিষ্যতের গতিপ্রকৃতি নির্ধারণ করার জ্ঞান ও পদ্ধতিকে জ্যোতিষশাস্ত্র বলা হয়। এই জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, প্রত্যেকটি দিনের রয়েছে কিছু বিশেষ তাৎপর্য। সপ্তাহের সাতটি দিনের মধ্যে সোমবার দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। এই দিনে কয়েকটি বিশেষ নিয়ম মেনে চললেই হতে পারে আপনার সার্বিক উন্নতি, মিলবে সৌভাগ্য। সেই নিয়মগুলি সম্বন্ধে জেনে নেওয়া যাক।

আরও পড়ুন- কেমন কাটবে রবিবারের সারাদিন, দেখে নিন রাশিফল

শিব হলেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্বোচ্চ দেবতা। সনাতন ধর্মের শাস্ত্রসমূহে তিনি পরমসত্ত্বা রূপে ঘোষিত। শিব সৃষ্টি-স্থিতি-লয়রূপ তিন কারনের কারন, পরমেশ্বর- এটা তার প্রণাম মন্ত্রেই বার বার উঠে এসেছে। শিবমূর্তির প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি হল তার তৃতীয় নয়ন, গলায় বাসুকী নাগ, জটায় অর্ধচন্দ্র, জটার উপর থেকে প্রবাহিত গঙ্গা, অস্ত্র ত্রিশূল ও বাদ্য ডমরু। শিবকে সাধারণত ‘শিবলিঙ্গ’ নামক বিমূর্ত প্রতীকে পুজো করা হয়। সমগ্র হিন্দু সমাজে শিবপুজো প্রচলিত আছে। ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশে শিব পুজোর ব্যাপক প্রচলন রয়েছে। শাস্ত্রমতে দেবাদিদেব মহাদেবের পুজোয় জীবন হয়ে ওঠে সুন্দর ও সুস্থির। অনেকেই মনে করেন, সোমবার ও শুক্রবারে শিবের পুজো করলে সকল মনের ইচ্ছে পূরণ হয়। তাই বিধি সহকারে অনেকেই সোমবার মহাদেবের পুজো করে থাকেন।  

আরও পড়ুন- সন্ধ্যের পর এই কটি জিনিস কখনোই দান করবেন না, আসতে পারে চরম দুর্ভোগ

জীবনের সমস্ত প্রতিকূলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য সোমবার, দেবাদিদেব মহাদেবের পুজো করুন। শুদ্ধ মনে, শুদ্ধ বস্ত্রে আকন্দ ফুল অর্পণ করুন মহাদেবের উদ্দেশ্যে। আপনার জীবনের সমস্ত বাধা কেটে যাবে ধীরে ধীরে। সোমবারের জন্য সাদা বা ধূসর রং অত্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। তাই এদিনে সাদা বা ধূসর বস্ত্র পরিধান করুন, সমস্ত বাধা-বিপত্তি কেটে যাবে। সম্ভব হলে সোমবার দিনটি নিরামিষ আহার গ্রহণ করুন। মহাদেবের পুজো করে সেদিন নিরামিষ আহার গ্রহণ করা উচিৎ, তবে এই বিষয়ে কোন বাধ্যবাধকতা নেই। আপনি চাইলে নিরামিষ আহার গ্রহণ করতেই পারেন। অনেকেই মহাদেবের পুজোর পর পারণ পালনের জন্য নিরামিষ আহার গ্রহণ করে থাকেন। এই দিনে যদি উপোস করে মহাদেব এবং দুর্গা ও কালী অথবা আপনার ইষ্টদেবতার আরাধনা করতে পারেন তবে আপনার জীবনে সৌভাগ্য ফিরে আসবেই। দেবতার পুজো করে তবে উপোস ভঙ্গ করতে হবে।