কার্ত্তিক মাসের অমাবস্যা তিথিতে দীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জাঁকজমক সহকারে পালিত হয়। এছাড়া মাঘ মাসের চতুর্দশী তিথিতে রটন্তী কালীপুজো ও জ্যৈষ্ঠ মাসে ফলহারিণী কালীপুজোও বিশেষ জনপ্রিয়। কালী বা কালিকা হলেন আদ্যাশক্তির এর রূপ। শাক্ত মতে, কালী বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টির আদি কারণ। বাঙালি হিন্দু সমাজে কালীর মাতৃরূপের পূজা বিশেষ জনপ্রিয়। পুরাণ ও তন্ত্র সাহিত্যে কালীর বিভিন্ন রূপের বর্ণনা পাওয়া যায়। 

আরও পড়ুন- দীপাবলিতে বাস্তু মতে সাজান ঘর, বজায় থাকবে দেবী লক্ষ্মীর বিশেষ কৃপা

‘কাল’ শব্দের দুটি অর্থ রয়েছে: ‘নির্ধারিত সময়’ ও ‘মৃত্যু’। প্রকৃত অর্থে কাল অর্থাৎ সময় কে কলন যার অর্থ রচনা করেন তিনিই কালী।  দক্ষিণাকালী, ভদ্রকালী, সিদ্ধকালী, গুহ্যকালী, শ্মশানকালী, মহাকালী, রক্ষাকালী ইত্যাদি। আবার বিভিন্ন মন্দিরে "ব্রহ্মময়ী", "ভবতারিণী", "আনন্দময়ী", "করুণাময়ী" ইত্যাদি নামে কালীপ্রতিমা পূজা করা হয়। এই সব রূপের মধ্যে দক্ষিণাকালীর বিগ্রহই সর্বাধিক পরিচিত ও পূজিত। দক্ষিণাকালী চতুর্ভূজা, তার চার হাতে খড়্গ, অসুরের ছিন্ন মুণ্ড, বর ও অভয়মুদ্রা রয়েছে। তার গলায় রয়েছে নরমুণ্ডের মালা। দেবীর গায়ের রং কালো। মাথায় আলুলায়িত চুল এবং তিনি শিবের বুকে ডান পা আগে রেখে দণ্ডায়মান।

আরও পড়ুন- ঋণ থেকে মুক্তি পেতে, দীপাবলির রাতে বাড়ির এই জায়গাগুলিতে জ্বালান প্রদীপ

ভারতীয় সময় অনুসারে বাংলার ২৭ কার্তিক ১৪২৭, ইংরেজি ১৩ নভেম্বর ২০২০ শুক্রবার এয়োদশী পালন বা ধনতেরাস। বাংলার ২৮ কার্তিক ১৪২৭, ইংরেজি ১৪ নভেম্বর ২০২০ শনিবার, প্রদোষে বহির্যম দীপদানম্। চতুর্দশ দীপ দানম্) চৌদ্দ প্রদীপ দানের ব্রত পালিত হবে। বাংলার ২৯ কার্তিক ১৪২৭, ইংরেজি ১৫ নভেম্বর ২০২০ রবিবার চৌদ্দ শাক ভক্ষণ-সহ প্রদোষে শ্রীশ্রীমহালক্ষ্মী ও শ্রীশ্রীঅলক্ষ্মী পূজা, শ্রীশ্রীশ্যামাপূজা, নরক চতুর্দশী, দীপাবলী উৎসব পালন।  ভূতচতুর্দশী কৃত্যম, চতুর্দশ যম তর্পণম্ পালন। বাংলার ৩০ কার্তিক ১৪২৭, ইংরেজি ১৬  নভেম্বর ২০২০ সোমবার,ভ্রাতৃদ্বিতীয়া বা ভাইফোঁটা পালন, যমদ্বিতীয়া সহ শ্রী শ্রী ধর্মরাজ পুজা।