স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্যশাস্ত্র চারটি উপবেদের অন্যতম।  প্রায় ৫০০০ বছর ধরে বাস্তুবিদ্যা কালের বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রামে জয়ী হয়েছে। বৈদিক যুগে স্থাপত্য বিজ্ঞান মূলত মন্দির নির্মাণে ব্যবহৃত হত। পরবর্তীতে তা বিস্তার লাভ করে। শাস্ত্র অনুযায়ী রয়েছে চার দিক যেমন, উত্তর, দক্ষিণ, পূর্ব, পশ্চিম, ও চার কোন যেমন- ঈশান, নৈর্ঋত, অগ্নি এবং বায়ু। আর আপনার বাস্তুতে এই প্রত্যেকটি দিক বা কোনের রয়েছে আলাদা আলাদা গুরুত্ব। তাই সমস্ত সমস্যা কাটিয়ে উঠতে বাস্তুর কিছু নিয়ম পালন করা গুরুত্বপূর্ণ। 

আরও পড়ুন- কীভাবে মৃত্যু হবে তা অনুমান করা সম্ভব, রাশি অনুযায়ী জেনে নিন জ্যোতিষশাস্ত্রের মত

বাস্তুমতে বাড়িতে প্রতিটি বস্তু বা জিনিস রাখার নির্দিষ্ট দিক ও নিয়ম আছে। পাশাপাশি বাস্তু মতে, বাস্তুর জন্য তুলসী গাছ অত্যন্ত শুভ।  তুলসীকে লক্ষীর অবতার বলে মনে করা হয়। পুরাণ মতে, যে বাড়িতে তুলসী গাছ আছে এবং নিয়মিত তার পুজো করা হয়, সেই বাড়িতে  সুখ ও সমৃদ্ধি বজায় থাকে। তবে, সঠিক নিয়ম মেনে তবেই বাস্তু তে তুলসী গাছ রাখতে হলে, অন্যথায় হতে পারে মহা বিপদ। আর নিয়ম মেনে যদি বাড়িতে তুলসী গাছ রাখতে পারেন, তবে সহজেই সংসারে ফিরে আসবে সুখ ও সমৃদ্ধি।
তাই বাস্তু মতে জেনে নেওয়া যাক বাড়িতে তুলসী রাখার নির্দিষ্ট নিয়মগুলি-

আরও পড়ুন- এই ৫ রাশির আকর্ষণ ক্ষমতা সবচেয়ে বেশি, এদের প্রতি সবার নজর বেশি থাকে

তুলসী গাছ সব সময় বিজোড় সংখ্যায় রাখতে হবে। যেমন-তিনটি, পাঁচটি । এই গাছের পাশে কোনও কাঁটা জাতীয় গাছ রাখা যাবে না। তুলসী গাছ সম সময় উত্তর বা উত্তর-পূর্ব দিকে রাখতে হবে। বাস্তুতে কখনোই মরা তুলসী গাছ রাখা চলবে তা। তা খুবই অমঙ্গলজনক বা অশুভ। তুলসী গাছ বাড়িতে রাখলে তবে তার প্রতিদিন পুজো করতে হবে, তাতে জল ঢালতে হবে। প্রতি সন্ধ্যেবেলায় তুলসী মঞ্চে প্রদীপ জ্বালতে হবে। তুলসী মঞ্চ সবসময় পরিষ্কার রাখতে হবে। অন্য কোনও গাছ তুলসী মঞ্চে রাখা চলবে না। বাড়িতে বেশ কিছুটা উঁচু স্থানে তুলসী গাছ রাকা দরকার। চলার পথের থেকে কিছুটা উঁচুতে। কোনও মঞ্চের উপর থাকলে তা আরও ভাল। সন্ধ্যের পর তুলসী গাছ স্পর্শ করা যাবে না। এছাড়া বিশেষ কিছু তিথিতে তুলসী পাতা তোলা যাবে না। একাদশী, সূর্যগ্রহণ এই দিনগুলিতে কোনও ভাবেই তুলসী পাতা ছেঁড়া চলবে না।