প্রদোষ ব্রত দেবাদিদেব শিবকে সন্তুষ্ট করার জন্য করা হয়। শাস্ত্র অনুসারে সপ্তাহে বিভিন্ন দিনে প্রদোষের গুরুত্বের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। তবে সোমবারে স্বাস্থ্য ও অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতির জন্য এই ব্রত গুরুত্বপূর্ণ। শিব পুরাণ এবং স্কন্দ পুরাণ অনুসারে সোমবারে শিবের উপবাসের মাধ্যমে সকল ধরণের সমস্যা কাটিয়ে ওঠা যায়। পুরাণে এই ব্রতে ইচ্ছাপূরণী হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন- জ্যৈষ্ঠ মাসে কখনই এই জিনিসগুলি ব্যবহার করবেন না, হতে পারে মহাবিপদ

সোমবার প্রদোষ ব্রত পালন জীবনকাল বাড়ায় এবং স্বাস্থ্যও ভালো রাখে। এর ফলে দ্রুত রোগ নিরাময় হয় এবং কোনও শারীরিক সমস্যা থাকে না। এই দিনে শিব ও শক্তির উপাসনা করলে দাম্পত্য সুখ বৃদ্ধি পায়। সোমবার প্রদোষ ব্রত ও পুজোর ফলে আর্থিক সমস্যাও দূর হয়। এই ব্রত বিভিন্ন ধরণের দোষ মুক্ত করে। যেই ব্যক্তি এই ব্রত পালন করেন তার পরিবার সব সময় সুস্থ থাকে। এছাড়া, সমস্ত মনের ইচ্ছা পূরণ হয়।

আরও পড়ুন- জ্যেষ্ঠ মাসের একাদশীতে এই নিয়ম পালন করলে, ফল পাবেন হাতে নাতে

প্রদোষ ব্রত এবং উপাসনা পদ্ধতি

এই ব্রত পালন নির্জলা উপবাস করা হয়। সন্ধ্যায় বিশেষভাবে শিবের পুজো করা হয়। সন্ধ্যাবেলা সূর্য ডুবে যাওয়ার আগে স্নান সেরে ভগবান শিব এবং দেবী পার্বতীর আরাধনা করা হয়। পরিষ্কার পোশাক পরে, পূর্বে মুখ করে পুজো করা হয়।  উত্তর-পূর্ব দিকে বসে শিবের উপাসনা করা উচিত। পুজোর স্থানে গঙ্গাজল ছিটিয়ে দিন।  সবার আগে গণেশ পুজো সারুণ। এরপর নিজের হাতে মাটির শিবলিঙ্গ গড়ে নিন। মোমবাতি, ধূপ জ্বালিয়ে আরতি করুন। ওম নমঃ শিবায় মন্ত্র ১০৮ বা জপ করুন। জল, দুধ, পঞ্চমৃত দিয়ে শিবের মূর্তিতে জল ঢালুন। শিবের উপাসনায় বেল পাত্র, ধাতুরা, ফুল, মিষ্টি, ফল দিয়ে দিন। তবে মনে রাখবেন লাল রঙের ফুল শিবকে অর্পণ করা উচিত নয়। নিজের মনের মত করে ঈশ্বরের আরাধনা করুন। এই উপায়ে এই প্রদোষ ব্রত পালন করলেই সক বাধা কাটিয়ে উঠতে পারবেন সহজেই।