বাংলা সিনেমায় প্রাণ ঢালা সুন্দরী কত জন আছেন? প্রশ্নটা ছুঁড়ে দিলে সংখ্যাটা যে বিশাল আকারে পাল্টা আসবে এমনটা নয়। তবে, যে কয়টি নামের ফিরিস্তি পাওয়া যাবে তাতে তনুশ্রী চক্রবর্তী-র নামটাও যে থাকবে তাতে কোনও সন্দেহ নেই। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তনুশ্রী অভিনীত 'গুমনামি'। সেই ছবিতে তাঁর অভিনয় যথেষ্টই প্রশংসিত হয়েছে। উৎসবের মরসুমে 'গুমনামি'-র জন্য এই কদর ভালোই উপভোগ করছেন তিনি। 

সম্প্রতি 'গুমনামি' ছবিটি দেখতে যান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্ত্রী ও ছেলে। ছবি দেখার পর টিম 'গুমনামি'-র সঙ্গে তাঁরা ছবিও তোলেন। যেখানে উপস্থিত ছিলেন 'গুমনামি'-র পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়, অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও তনুশ্রী চক্রবর্তী। পরে সেই ছবিটি নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেন তনুশ্রী। রাজ্যপালের এভাবে সপরিবারে 'গুমনামি' দেখায় তিনি যে প্রচণ্ড খুশি তা এই ছবি পোস্টের কমেন্ট লাইনে বিবৃতও করেন তিনি। এখানে রাজ্যপালকে তিনি ধন্যবাদও জানিয়েছেন। 

এই ছবি পোস্টের সঙ্গে সঙ্গে টুইটার অ্যাকাউন্টে তনুশ্রী তাঁর আগামী ছবির পোস্টারও প্রকাশ করেন। 'জম্বিয়েস্থান' নামে এই ছবিটি পরিচালনা করছেন অভিরূপ ঘোষ। এছাড়াও তনুশ্রী-র সহ-অভিনেতাদের তালিকায় রয়েছেন রুদ্রনীল ও রজতাভ। এই ছবিটির পোস্টার প্রকাশ করতে গিয়ে তনুশ্রী লিখেছেন, 'মা দুর্গা হল নারীশক্তির মহাপ্রকাশ, প্রতিটি মহিলার মধ্যেই অশুভ-কে ধ্বংস করার সমস্ত শক্তি রয়েছে।' সন্দেহ নেই 'গুমনামি'- র সাফল্য তনুশ্রী-কে নতুন করে তাঁর ফিল্মি কেরিয়ারে অক্সিজেন জুগিয়েছে। 

'জম্বিয়েস্থান' নামে এই ছবিটি তৈরি হচ্ছে ২০৩০-এর প্রেক্ষাপটে। যখন মানুষ জম্বি-তে পরিণত হয়েছে এবং একে অপরের সঙ্গে লড়াই করছে। আকিরা নামে এক মহিলা-র উপরেও আক্রমণ শানায় জম্বিরা। কিন্তু কোনওভাবে সে বেঁচে যায়। বলতে গেলে তাঁর এলাকায় আরও কোনও মানুষ নেই যারা জম্বিদের আক্রমণে প্রাণ হারাননি। আকিরা এক ভিআইপি স্থানের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার চেষ্টা করে। সে জানে ওখানে পৌঁছতে পারলে সে বেঁচে যাবে। আকিরার এই যাত্র এবং জম্বিদের সঙ্গে তাঁর লড়াই নিয়ে এই ছবির কাহিনি। খুব শিগগিরি ছবিটির শ্যুটিং শুরু হওয়ার কথা। জম্বিদের নিয়ে হিন্দি এবং অন্যান্য ভাষায় প্রচুর ছবি হলেও বাংলায় তেমন কোনও কাজ হয়নি। এখন দেখার জম্বিদের সঙ্গে লড়াইয়ে তনুশ্রী বক্স অফিসে কতটা আগুন লাগাতে সমর্থ হন।