সেপ্টেম্বর মাসে ব্রেকফ্রি মুডে ছিলেন মনামী ঘোষ। দার্জিলিংয়ে ছুঁটে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী। পাহাড়ি পরিবেশের মধ্যে শান্তি খুঁজে পেয়েছিলেন তিনি। যা শহর থেকে দূরে পাহাড়ের কোলে গিয়ে পেয়েছেন। মনামীকে দেখে সকলেরই ইচ্ছা জাগছে ঘুরতে যাওয়ার। তবে সেই সুখ আর ক'জনেরই বা হচ্ছে। মনামী তাদের জন্য ভারচ্যুয়াল দার্জিলিং নিয়ে এসেছিলেন। বাড়িতে বসেই আপনি নেবেন পাহাড়ি পরিবেশের আমেজ। নিজের দার্জিলিং ভ্লগ শেয়ার করেছিলেন তিনি। লকডাউনের পর কেমন হল দার্জিলিংয়ের চেহারা।

ভ্লগিংয়ে তা তুলে ধরলেন মনামী। বিমানবন্দর থেকে রিসর্টে পৌঁছনো সবই শেয়ার করেছেন। রিসর্টে কীভাবে মানা হচ্ছে সামাজিক দূরত্ব সবই দেখিয়েছেন তিনি। এমনকি কোথাও প্রবেশ করার সময় স্যানিটাইজার স্প্রে করেই প্রবেশ করেছিলেন। স্যানিটাইজেশন ছাড়া কোথাও এক ফোঁটা নড়েননি মনামী। ট্র্যাভেল সম্ভবত মনামীর বয়স কমিয়ে দিয়েছে আরও। যদিও তাঁকে দেখে তাঁর বয়স ধরা বেশ মুশকিল। 

কবে থেকে একই রকম জৌলুস, যৌবন, সৌন্দর্য ধরে রেখেছেন। এ কথাই বারে বারে বলে যায় ভক্তরা। সে কথা সম্প্রতি স্বীকার করেছিলেন খোদ অভিনেত্রীও। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও পোস্ট করে রহস্যভেদও করেন। ঘুরতে গিয়ে গাড়ির ফ্রন্ট সিটে বসে ভিডিওটি করেছিলেন। ক্যাপশনে দিয়েছিলেন, "বয়স দিন দিন যদি কারও কমে তাহলে সেটা মনামী।" ট্র্যাভেলিংই হল মনামীর বয়স ধরে রাখার সিক্রেট।