প্রয়াত বিখ্য়াত ফ্য়াশন ডিজাইনার শর্বরী দত্ত। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে বারোটা  নাগাত তাঁর নিজের বাড়িতেই মৃত্যু হয়েছে। তবে এখনও অবধি তাঁর মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি। টলিউড থেকে বচ্চন পরিবার, সর্বোত্র তাঁর কাজ প্রশংসা পেয়েছে।  বর্ষীয়ান এই  ফ্য়াশন ডিজাইনারের মৃত্যুতে শোকস্তবদ্ধ টলিউড। ঋতুপর্ণা থেকে রাজ চক্রবর্তী সকলেই শোক প্রকাশ করেছেন। 

আরও পড়ুন, রাতে বাথরুম থেকে উদ্ধার বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার শর্বরী দত্তের মৃতদেহ, মৃত্যু ঘিরে রহস্য

 

 

আরও পড়ুন, একাধিকবার বচ্চন পরিবার সেজে উঠেছে তাঁরই পোশাকে, অস্বাভাবিক মৃত্যু ডিজাইনার শর্বরী দত্তের

 

ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, 'এখন রোজই অপেক্ষা করে থাকি এই ভেবে যে, কোনও একটা দুঃসংবাদ সকাল বেলা আসবে। তাই সুসংবাদের অপেক্ষা এখন আর করি না। আবার একটা এতবড় শক, এত বড় যুগের পতন হয়ে গেল। শর্বরীদি নেই এই কথাটা শোনাটাই একটা অদ্ভুত অনুভূতি। এটা এখনও নিতে পারছি না যে, শর্বরীদির সঙ্গে আর দেখা হবে না। ওই হাসি,কপাল জোড়া টিপ এবং এত সুন্দর কথা বলতেন উনি। সবমিলিয়ে তিনি এক পরিপূর্ণা নারী। আন্তর্জাতিক মানের ডিজাইনার শর্বরী দত্ত, তাঁর বিকল্প আর কেউ নেই। উনি খুব সুন্দর মনের মানুষ ছিলেন। আমার বহু সিনেমা দেখে খুব সুন্দর বিশ্লেশন করেছিলেন। তখন বুঝেছি যে তিনি কত গভীরভাবে উপলব্ধি করেছেন প্রত্য়েকটা মুহূর্ত। তবে আমার জীবনের অন্যতম মুহূর্তেও জড়িয়ে আছেন শর্বরীদি। আমার বরের পাঞ্জাবী, বিয়ে ও বউভাতের দুটিই শর্বরীদির করা। আজও আমার বর পরে গর্ববোধ করে। একটা ইজিপ্টশিয়ান মোটিভ ছিল সেই কাজে। তবে শর্বরীদির এই আকস্মিক চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছি না। মন থেকে খুব কষ্ট হচ্ছে মেনে নিতে', বলে শোকপ্রকাশ করেছেন ঋতুপর্ণা। 

 

 

 

অপরদিকে, পরিচালক রাজ চক্রবর্তী  ফ্য়াশন ডিজাইনার শর্বরী দত্তের মত্যুতে রীতিমত শকড্ বলে জানিয়ে টুইট করেছেন। 'বাংলার পোশাকে ধারাবাহিকবাবে সৃষ্টিশীল কাজ দিয়ে গিয়েছেন।  তার সঙ্গে কাজ করতে পেরে এবং তাঁর স্টাইলিস পোশাকে থাকতে পেরে আমি গর্বিত। আশা করি তিনি এখন যেখানে আছেন, ভাল আছেন।' শোকপ্রকাশ করেছেন পরিচালক অরিন্দম শীলও। উল্লেখ্য,  বাঙালির পোশাকের এক যুগ বদল ঘটেছিল তাঁরই হাত ধরে। পুরুষ পোশাকে রঙিন ধুতির চল এনেছিলেন তিনি, কলকাতা থেকে মুম্বই, চলচ্চিত্র জগত থেকে আমজনতার বিয়ের সাজ, শর্বরী দত্ত ছিলেন কলকাতার ফ্যাশন জগতের ফাইনাল ডেস্টিনেশন। যাঁর পোশাক একাধিকবার পরেছে বচ্চন পরিবারও। এই মহুর্তে তাঁর মৃত্যদেহ ময়না তদন্তের জন্য রাখা হয়েছে এনআরএস-এ। শোকের ছায়া সর্বত্র।