ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার, জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার বিচার চাই, এই হ্যাশট্যাগ গুলির সঙ্গেই চলছে গোটা বলিউড তারকারা। মার্কিন মুলুকের প্রতিবাদ মিছিলে ভারচ্যুয়ালি পাশে দাঁড়াল বলিউড। একে একে সকলে তারকারা জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার বিচার চাইছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। দিনের আলোয় পুলিশের গাড়ির সামনে আফ্রিকান-আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডকে মেরে ফেলা হল। রাস্তার লোকজন কেবল ফ্যাল ফ্যাল করে তামাশা দেখল। রেকর্ডও করল সেই নৃশংস দৃশ্য। মিলিপলিসের এক শেতাঙ্গ পুলিশ অফিসার ডেরেক শভিনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনছে নেটিজেনরা। এই নিয়ে নিন্দা, বিতর্ক, চর্চা, চলতে চলতে মুখ খুললেন অভয় দেওল। 

আরও পড়ুনঃআর্থিক সঙ্কটে পড়ে শ্রীদেবীর সম্পত্তি বিক্রি করেছিলেন বনি, গোপন তথ্য ফাঁস করলেন অভিনেত্রীর কাকা

অন্য দেশের জন্য গলার স্বর উঁচু করার আগে নিচের দেশের বৈষম্যতায় এক নজর দাও। এই হল অভয়ের বার্তা। ভারতে যে ধনী-দরিদ্র, ব্রাহ্মণ-কায়স্ত নিয়ে মারামারি কাটাকাটি, দলিত হত্যা, কী পরিমাণে বৃদ্ধি পাচ্ছে তা দেশের প্রত্যেক মানুষেরই নজরে পড়ছে। ইতিমধ্যেই বাড়ি ফিরতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছে অসংখ্য পরিযায়ী শ্রমিক। তাদের জন্য আওয়াজ তুলে অভয়ের এই ইনস্টা পোস্ট। পরিযায়ী শ্রমিকদের জীবনের দাম আছে, নিচুশ্রেণীর মানুষদের জীবনের দাম আছে, দরিদ্রদের প্রাণের দাম আছে। এই তিনটি হ্যাশট্যাগ দিয়ে নিজের প্রতিবাদের ঝান্ডা ওড়ালেন অভয়।

আরও পড়ুনঃপাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহিরার সঙ্গে একান্তে ধূমপান রণবীরের, গোপন সম্পর্ক ঘিরে জল্পনা

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

Maybe it’s time for these now? Now that “woke” indian celebrities and the middle class stand in solidarity with fighting systemic racism in America, perhaps they’d see how it manifests in their own backyard? America has exported violence to the world, they have made it a more dangerous place, it was but inevitable that it would come back karmically. I’m not saying they deserve it, I’m saying look at the picture in it’s totality. I’m saying support them by calling out the systemic problems in your own country, because they turn out to be one and the same thing. I’m saying follow their lead but not their actions. Create your own actions, your own movement, relevant to your own country. That is what the black lives matter movement is all about! In the larger picture, there is no “us” and “them”. There is not a country that’s real. But a planet in peril. #migrantlivesmatter #minoritylivesmatter #poorlivesmatter Black Lives Matter (find out why not to use the hashtag and still support the movement).

A post shared by Abhay Deol (@abhaydeol) on Jun 2, 2020 at 8:24pm PDT

কঙ্গনা জানিয়েছিলেন, "পালঘর সাধুদের যখন রাস্তায় সকলে মেরে ফেলেছিল তখন তো এদের কাউকে একটা কথা বলতেও শুনলাম না। তাহলে এখন জর্জ ফ্লয়েডের খুন নিয়ে এত মাতামাতি কীসের। অত্যন্ত লজ্জার বিষয়। নিজেদের ছোট্ট একটা পৃথিবীতে থাকতে পছন্দ করে এরা। পাল্লা যেদিকে ভারি হবে সেদিকেই সবাই চলে যায় অন্ধের মত। দু'মিনিটের জন্য জনপ্রিয়তা লাভ করা যায় এসবে। ভারত স্বাধীন হওয়ার আগে স্বেতাঙ্গ মানবের দাসত্ব করে এসেছে সকলে। সেই বংশানুক্রমিক জিনই রয়ে গিয়েছে এদের মধ্যে।" অভয়ের কথাতেও প্রায় একই বার্তা।